• বিস্ফোরণের ঘটনায় তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের লক্ষ্য হতে হবে দুর্ঘটনার মূল কারণ খুঁজে বের করা।

  • তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ না হলে জনগণ প্রকৃত তথ্য ও সত্য জানা থেকে বঞ্চিত হয়।

  • গ্যাস লিকেজের লক্ষণগুলো ভবনের বাসিন্দারা যেমন উপেক্ষা করেন, তেমনি কর্তৃপক্ষও গুরুত্ব দেয় না।

  • পুরোনো ও ঝুঁকিপূর্ণ গ্যাসলাইন শনাক্ত করে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে তা মেরামতের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

বিস্ফোরণের পূর্বাভাস

গ্যাস বিস্ফোরণ কি আদৌ প্রতিরোধ করা সম্ভব? এর উত্তরে বলা যায়, গ্যাস লিকেজ সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করা কঠিন হলেও এর কারণে সংঘটিত দুর্ঘটনা কমিয়ে আনা সম্ভব। গ্যাস লিকেজ শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিস্ফোরণ ঘটে যায় না, কিছুটা সময় লাগে পর্যাপ্ত পরিমাণ গ্যাস জমা হওয়ার জন্য। তাই দুর্ঘটনা ঘটার আগে অধিকাংশ ক্ষেত্রে গ্যাস লিকেজের লক্ষণ প্রকাশ পায়। যেমন নারায়ণগঞ্জের মসজিদের বিস্ফোরণের পূর্বে গ্যাস লিকেজের অভিযোগ করা হয়েছিল। মগবাজারে বিস্ফোরণের আগেও আশপাশের লোকজন গ্যাসের গন্ধ পেয়েছেন বলে উল্লেখ করেছেন। এটি আসন্ন গ্যাস বিস্ফোরণের পূর্বাভাস।

মগবাজারে দুর্ঘটনার পর আমরা অকুস্থলে কর্তৃপক্ষ ও বিভিন্ন সংগঠনকে গ্যাস ডিটেক্টর দিয়ে গ্যাসের মাত্রা শনাক্ত করতে দেখেছি। এ কাজটি গ্যাস লিকেজের লক্ষণ প্রকাশ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে করা গেলে গ্যাসের উপস্থিতি এবং উৎস শনাক্ত করা সম্ভব হতো এবং ভয়াবহ দুর্ঘটনা এড়ানো যেত। উন্নত বিশ্বে বেশির ভাগ গ্যাস লিকেজ রিপোর্ট হওয়ামাত্র তা মেরামতের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। যে কারণে উন্নত দেশে দুর্ঘটনার সংখ্যা কম। কিন্তু দুর্ভাগ্য হচ্ছে আমাদের দেশে গ্যাস লিকেজের লক্ষণগুলো (যেমন গ্যাসের গন্ধ পাওয়া, দমবন্ধ ও বমি বমি লাগা) ভবনের বাসিন্দারা যেমন উপেক্ষা করেন, তেমনি রিপোর্ট করা সত্ত্বেও কর্তৃপক্ষ গুরুত্ব দেয় না। ফলে দুর্ঘটনা অনিবার্য হয়ে পড়ে।

এ ছাড়া অবৈধ গ্যাসলাইনে সেফটির (নিরাপত্তা) বিষয়টি আমলে নেওয়া হয় না বিধায় এটি জননিরাপত্তার জন্য একটি বিরাট হুমকি। এ ধরনের সব লাইন অনতিবিলম্বে বন্ধ করার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। সেই সঙ্গে এলাকা ভিত্তিতে পুরোনো ও ঝুঁকিপূর্ণ গ্যাসলাইন শনাক্ত করে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে তা মেরামতের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

দুর্ঘটনা ঘটে গেলে কী করা উচিত

গ্যাস লিকেজের কারণে বিস্ফোরণ হলে দুর্ঘটনার পরও গ্যাসের লিকেজ বা প্রবাহ চলতে থাকার পূর্ণ আশঙ্কা থাকে, যা আরও বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে। তাই দুর্ঘটনা ঘটে যাওয়ার পর প্রথম কাজই হবে জরুরি ভিত্তিতে দুর্ঘটনাস্থল বা আশপাশের ভবন সম্পূর্ণভাবে ইভাকুয়েট (খালি) করে গ্যাস লিকেজের উৎস শনাক্ত করে তা বন্ধ করে দেওয়া। যতক্ষণ পর্যন্ত গ্যাসের উৎস বন্ধ করা না যাবে, ততক্ষণ ঘটনাস্থলে জনসাধারণের চলাচল বন্ধ রেখে ইমার্জেন্সি ম্যানেজমেন্টের (জরুরি ব্যবস্থাপনা) জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। মগবাজারের ক্ষেত্রে আমরা গণমাধ্যমে জেনেছি, দুর্ঘটনার ১২ থেকে ১৩ ঘণ্টা পরও ফায়ার সার্ভিস এবং বিস্ফোরক অধিদপ্তর ঘটনাস্থলে ৯ থেকে ১২ শতাংশ মিথেন গ্যাসের উপস্থিতি পেয়েছে। এর অর্থ হচ্ছে গ্যাস তখনো লিক করছে এবং ৯ থেকে ১২ শতাংশ মিথেন যেহেতু দাহ্যসীমার মধ্যে পড়ে, তাই ভবনের যেকোনো আবদ্ধ অংশ বা পকেটে এটা জমে গিয়ে আবারও বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে। অথচ কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য ঠিক কোন ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, তা স্পষ্টভাবে জানা যায়নি।

দ্বিতীয়ত, বিস্ফোরণের পর দ্রুত সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞদের যুক্ত করে তদন্ত কমিটি গঠন এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সে প্রতিবেদন প্রকাশ করা। গ্যাস বা কেমিক্যাল বিস্ফোরণের তদন্তে কেমিক্যাল বিশেষজ্ঞ সদস্য থাকা বাধ্যতামূলক করা। কেমিক্যাল বিশেষজ্ঞ অন্তর্ভুক্ত না থাকার কারণে চকবাজারের ভয়াবহ কেমিক্যাল দুর্ঘটনার সময়ও আমরা দেখেছি তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন বিভিন্নভাবে বাধাগ্রস্ত হয়েছে। এখানে একটি বিষয় উল্লেখ করা প্রয়োজন, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের লক্ষ্য হবে ‘রুট কজ’ বা দুর্ঘটনার মূল কারণ খুঁজে বের করা, দোষী ব্যক্তিকে শাস্তি দেওয়া নয়। আমাদের প্রবণতা হচ্ছে কোনো ব্যক্তিকে দোষী সাব্যস্ত করে তাঁকে শাস্তি দিয়ে দায়মুক্ত হওয়া। দুর্ঘটনার মূল কারণটি দূর করার বিষয়ে আমরা মোটেও মনোযোগ দিই না, ফলে একই ধরনের দুর্ঘটনা বারবার ঘটতে থাকে।

তৃতীয়ত, যতক্ষণ পর্যন্ত তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশিত না হচ্ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত মিডিয়া এবং কর্তাব্যক্তিদের যেকোনো ধরনের অনুমাননির্ভর তথ্য প্রদান করা থেকে বিরত থাকা অত্যন্ত জরুরি। অনুমাননির্ভর এবং অবৈজ্ঞানিক কথাবার্তা জনমনে বিভ্রান্তি ও অবিশ্বাসের জন্ম দেয় এবং নিরপেক্ষভাবে তদন্ত সম্পন্ন করা দুরূহ হয়ে পরে। যেমন যেকোনো বিস্ফোরণের পর প্রথমেই বলা হয় এসি বার্স্ট (শীতাতপনিয়ন্ত্রিত যন্ত্র) করেছে। যাদের এসি সম্পর্কে ধারণা আছে তাঁরা জানেন, এসিতে এমন কোনো কম্পোনেন্ট (উপাদান) নেই, যা বিস্ফোরিত হতে পারে। এসির কম্প্রেসর ফেইলুর আর বিস্ফোরণ এক কথা নয়। কম্প্রেসর ফেইলুরের কারণে জোরে শব্দ হতে পারে, আগুনের ফুলকি তৈরি হতে পারে, এমনকি দু–একজন আহতও হতে পারেন। কিন্তু একটি পূর্ণাঙ্গ বিস্ফোরণের জন্য বিপুল পরিমাণে গ্যাস বা কেমিক্যাল বা অন্য কোনো অতি দাহ্য পদার্থের উপস্থিতি অবশ্যই থাকতে হবে। এসিতে রেফ্রিজারেন্ট হিসেবে যে পরিমাণ গ্যাস থাকে, তা দিয়ে বড় কোনো বিস্ফোরণ সম্ভব নয়।

ভুল ধারণা ও জবাবদিহি

সেপটিক ট্যাঙ্ক বিস্ফোরণের কথা আমরা শুনেছি। সেপটিক ট্যাঙ্ক বিস্ফোরণের কারণে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে এক–দুজন লোকের হতাহতের কথা শোনা যায় বটে, তবে ভবন ধ্বংস করার মতো মিথেন গ্যাস সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে তৈরি হওয়ার আশঙ্কা অত্যন্ত ক্ষীণ। সুয়ারেজ লাইনের গ্যাস লিকেজের কথাও এসেছে। আমাদের বুঝতে হবে যে অনেক সময় সুয়ারেজ এবং গ্যাসলাইন মাটির নিচে পাশাপাশি অবস্থান করার কারণে গ্যাস লিক করে সুয়ারেজ লাইন দিয়ে ভবনে প্রবেশ করে বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে। কিন্তু শুধু সুয়ারেজের বর্জ্য থেকে তৈরি মিথেন গ্যাস থেকে এ ধরনের বিস্ফোরণ ঘটার আশঙ্কা নেই বললেই চলে।

সবশেষে বলব, অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা যায় বিস্ফোরণের ঘটনায় গঠিত তদন্তের প্রতিবেদন ও সুপারিশ জনসমক্ষে প্রকাশ করা হয় না। এতে জনগণ যেমন প্রকৃত তথ্য ও সত্য জানা থেকে বঞ্চিত হয়, তেমনি সরকারি–বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের জবাবদিহিও কমে যায়। মগবাজারসহ সাম্প্রতিক কালে সংঘটিত সব দুর্ঘটনার তদন্তের প্রতিবেদন প্রকাশ করা দেশের জনগণের নিরাপত্তা এবং জনসচেতনতার জন্য অত্যন্ত জরুরি।

ই–মেইল: [email protected]