default-image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জলবায়ুর বিরূপ প্রভাবের ক্ষয়ক্ষতি পুষিয়ে নিতে বিশ্বব্যাপী উদ্যোগ গ্রহণে ব্যর্থতার জন্য অর্থ ও রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবই দায়ী।

তিনি বলেন, ‘যে ক্ষয়ক্ষতি হয়ে গেছে, ভবিষ্যতের ক্ষয়ক্ষতি হ্রাস করার প্রক্রিয়াও অনুরূপ গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু অর্থ ও রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবে বৈশ্বিক অভিযোজনমূলক পদক্ষেপগুলো ক্ষয়ক্ষতির সঙ্গে আদৌ সংগতিপূর্ণ নয়।’ তবে তিনি বলেন, সাম্প্রতিক কালের কোভিড-১৯–এর অভিজ্ঞতা সবার জন্য একতাবদ্ধ হওয়া এবং সময়োপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণের কার্যকারিতা প্রমাণ করেছে।

বিজ্ঞাপন

নেদারল্যান্ডস সরকারের উদ্যোগে গতকাল সোমবার শুরু হওয়া দুই দিনের অনলাইন জলবায়ু অভিযোজন সামিট ২০২১-এ প্রচারিত দুই মিনিটের রেকর্ড করা ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট সম্মেলনে স্বাগত বক্তৃতা করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবের জন্য বাংলাদেশকে প্রায়ই ‘গ্রাউন্ড জিরো’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। তিনি বলেন, ‘স্থানীয়ভাবে গৃহীত অভিযোজনমূলক ব্যবস্থায় বাংলাদেশ বিশ্বনেতৃত্ব হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। নেদারল্যান্ডসের সহায়তায় আমরা বাংলাদেশ ডেল্টা পরিকল্পনা-২১০০ গ্রহণ করেছি।’

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন