default-image

সারা দেশের অবৈধ হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের লাইসেন্স বাতিলের জন্য পদক্ষেপ নিতে সিভিল সার্জনদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে অননুমোদিত প্রতিষ্ঠানের তালিকাও চাওয়া হয়েছে। দু-এক দিনের মধ্যে এ–সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে অভিযান শুরু হবে বলে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক প্রথম আলোকে অভিযানের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘লাইসেন্সবিহীন হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছি।’  

বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আবদুল মান্নান প্রথম আলোকে বলেন, সিভিল সার্জনদের দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে, তাঁরা অবৈধ হাসপাতালগুলো পরিদর্শন করে লাইসেন্স বাতিল, সিলগালা করবেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র জানায়, সারা দেশে লাইসেন্স আছে, এমন প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৬ হাজার ৬৭টি। এর মধ্যে ২ হাজার ১৩০টি হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ৩ হাজার ৮৫৬টি এবং ব্লাডব্যাংক ৮১টি।

এর আগে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছিল তাদের অনুমতি ছাড়া আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দেশের কোনো সরকারি–বেসরকারি হাসপাতালে অভিযান চালাতে পারবে না।

এরপর স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে নিয়েই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান প্রথম আলোকে বলেছেন, ‘কোনো হাসপাতালের অনিয়ম সম্পর্কে জানলে আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অবহিত করি এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিয়ে এই অভিযানগুলো পরিচালনা করা হবে।

এর অর্থ অনুমতি নেওয়া নয়। পদ্ধতিগতভাবে যাওয়া ভালো। এতে অভিযান চালানোর ক্ষেত্রে কোনো ধরনের প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হবে না।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0