বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আইসিপি পেট্রাপোলের শুল্ক বিভাগের সহকারী কমিশনার অনিত জৈন জানান, ঈদুল আজহার ছুটি সত্ত্বেও স্থলবন্দর কর্মকর্তা, শুল্ক কর্মকর্তা, বিএসএফ এবং সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টদের সমন্বয়ে একটি বিশেষ দল গঠন করা হয়েছিল। ওই দলটি ঢাকায় ভারতের হাইকমিশন ও বেনাপোল কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রেখেছেন।

পেট্রাপোল স্থলবন্দরের পরিচালক কমলেশ সায়নী বলেন, পেট্রাপোল বন্দর থেকে তরল মেডিকেল অক্সিজেনের মতো প্রয়োজনীয় পণ্য পরিবহণে জন্য মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তাদের বিশেষ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। দুই দেশের বন্দর কর্তৃপক্ষের মধ্যে চমৎকার সম্পর্ক বিদ্যমান এবং তাদের একে অপরকে সহায়তা করার দীর্ঘ ঐতিহ্য রয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন