বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাক্ষ্য আইনের ১৫৫(৪) ও ১৪৬(৩) ধারা বাতিল চেয়ে বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট (ব্লাস্ট), আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) ও নারীপক্ষ ১৪ নভেম্বর ওই রিটটি করে। আদালত আগামী ৪ জানুয়ারি পর্যন্ত রিটের শুনানি মুলতবি করেছেন। সেই সঙ্গে ১৫৫(৪) ধারা বাতিল বিষয়ে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, তা হলফনামা আকারে রাষ্ট্রপক্ষকে জানাতে বলেছেন। সেই সঙ্গে রাষ্ট্রপক্ষকে ১৪৬(৩) ধারার বিষয়টিও আমলে নেওয়ার কথা বলেছেন আদালত।

আদালতে রিটের পক্ষে আইনজীবী জেড আই খান পান্না, শারমিন আকতার ও মো. শাহীনুজ্জামান এবং রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার শুনানিতে ছিলেন।

সাক্ষ্য আইনের ১৫৫(৪) ধারা অনুযায়ী, কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে যখন বলাৎকার বা শ্লীলতাহানির চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়, তখন সাধারণভাবে অভিযোগ দায়ের করা নারীকে দুশ্চরিত্রা দেখানোর সুযোগ থাকে। আর আইনের ১৪৬(৩) ধারা অনুযায়ী, চরিত্র নিয়ে কটাক্ষ এবং সাক্ষীর বিশ্বাসযোগ্যতা সম্পর্কে প্রশ্ন তোলা যায়। এই দুটি ধারা অসাংবিধানিক এবং বাতিল ঘোষণা চেয়ে রিটটি করা হয়।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন