default-image

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে এক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। আজ শুক্রবার রাতে উপজেলার সৈয়দ নজরুল ইসলাম সেতুর ভৈরব প্রান্তে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে এই ঘটনা ঘটে।

নিহত ফারুক খান (৩৫) ভৈরব পৌর শহরের চণ্ডীবের পাঠান বাড়ির সালাম খানের ছেলে।

নিহত ফারুক খানের পরিবারের সদস্য ও এলাকাবাসী জানান, ফারুক ভৈরব বাজারে ব্যবসা করতেন। আজ শুক্রবার রাতে তিনি মামাতো ভাই আরিফকে (১৫) সঙ্গে নিয়ে ব্যক্তিগত কাজে আশুগঞ্জে যান। চলমান লকডাউনের কারণে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় তাঁরা হেঁটে বাড়ি ফিরছিলেন। রাত সোয়া নয়টার দিকে সৈয়দ নজরুল ইসলাম সেতুর ভৈরব প্রান্তে আসামাত্র কয়েকজন ছিনতাইকারী তাঁদের গতিরোধ করে। এ সময় আরিফের কাছে থাকা দুটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে ফারুকের কাছে যায় তারা। তখন মুরগিবোঝাই একটি গাড়ি আসতে দেখে ছিনতাইকারীরা ফারুকের বুকে, হাতে ও গলায় ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন তাঁকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। রাতে ১১টার দিকে তিনি মারা যান।

বিজ্ঞাপন

আরিফ জানায়, ছিনতাইকারীরা চার–পাঁচজন ছিল। তাদের মুখে মাস্ক ছিল। ছিনতাইকারীরা তাঁর মামাতো ভাইকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়।

ফারুককে হাসপাতালে নিয়ে আসা ব্যক্তিদের মধ্যে জিনান মোল্লা একজন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘সড়কের পাশে রক্তাক্ত অবস্থায় এক ব্যক্তিকে আমরা পড়ে থাকতে দেখি। তখন লোকটিকে (ফারুক খান) হাসপাতালে নিয়ে আসি।’

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রিয়াসাত আজিম বিন আলম প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের এখানে আনা হয় রাত ১০টা ৫৩ মিনিটে। আনার কয়েক মিনিটের মধ্যে তিনি মারা যান। আঘাত ছিল তিনটি—বুকে, হাতে ও গলায়। প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছিল।’

ভৈরব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন