default-image

নাটোর সদর উপজেলার একটি গ্রামের গোদাই নদে বাঁধ দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে মাছ শিকার করে আসছিলেন স্থানীয় দুই প্রভাবশালী ব্যক্তি। এতে পানির প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হয়ে এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টির পাশাপাশি জীববৈচিত্র্য নষ্ট হচ্ছিল।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় ব্যক্তিদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে অবশেষে রোববার দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বাঁধ দুটি অপসারণ করে পানির স্বাভাবিক প্রবাহ নিশ্চিত করা হয়েছে।

স্থানীয় ও ভ্রাম্যমাণ আদালতসংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, উপজেলার ছাতনী ইউনিয়নের তেলকুপি গ্রামে আবদুর রহমান ও আবদুল করিম নামের দুই প্রভাবশালী ব্যক্তি গোদাই নদে অবৈধভাবে আড়াআড়ি বাঁধ দেওয়ার পর জাল দিয়ে অবাধে মাছ শিকার করছিলেন। এতে বিভিন্ন মাছ, সাপ, ব্যাঙ,শামুকসহ জলজ প্রাণী ধ্বংস হচ্ছিল। সেই সঙ্গে পানির প্রবাহ বিঘ্নিত হয়ে এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে রোববার দুপুরে উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু হাসান বাঁধ এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বাঁধ দুটি অপসারণ করান। এতে পানির স্বাভাবিক প্রবাহ নিশ্চিত হয়। এ সময় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা পালিয়ে ছিলেন। ফলে তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া যায়নি।

বিজ্ঞাপন

সহকারী কমিশনার আবু হাসান বলেন, গুটিকয়েক ব্যক্তির কারণে এলাকার শত শত মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছিল। অবৈধ সোঁতি জাল দিয়ে মাছ শিকার করায় জীববৈচিত্র্য নষ্ট হচ্ছিল। তাই অভিযান চালিয়ে বাঁধ দুটি অপসারণ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন