বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রের তথ্যমতে, ‘কানিজ ফাতেমা বনাম রাষ্ট্র এবং অন্য’ শিরোনামে ১৭ নভেম্বর ওই বেঞ্চের কার্যতালিকার ৪ নম্বর ক্রমিকে ফৌজদারি বিবিধ মামলা ছিল।ক্রমানুসারে মামলাটি শুনানির জন্য উঠলে দুদকের পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। রাষ্ট্রপক্ষের মাধ্যমে অবহিত হয়ে দুদকের সমন্বয়ক আবদুস সালাম ভার্চ্যুয়ালি আদালতে যুক্ত হন। দুদকের পক্ষে ওই মামলা পরিচালনার জন্য নতুন করে একজন আইনজীবীকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে আদালতকে জানান তিনি। কোনো কোনো ক্ষেত্রে দুদকের পক্ষ থেকে আইনজীবী না থাকা ও অনেক সময় আদালতের আদেশ দুদকে যথাযথভাবে কমিউনিকেট না হওয়ার বিষয়টি শুনানিতে আসে।

পরে সার্বক্ষণিক দুদকের একজন কর্মকর্তাকে সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে রাখতে মৌখিকভাবে বলা হয়। ভার্চ্যুয়াল আদালতের কার্যক্রম শুরুর আগে বেঞ্চটিতে দুদকের একজন প্রতিনিধি উপস্থিত থাকতেন।

উপস্থিত একাধিক আইনজীবীর ভাষ্যমতে, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কার্যক্রম শুরু হলে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, বুধবার আদালত মৌখিকভাবে আদেশ দিয়েছিলেন। তবে এখন কমিশনে জনবলের সংকট আছে। সার্বক্ষণিক একজন লোক দিতে কিছুটা সময় লাগবে। বেঞ্চের নেতৃত্বদানকারী বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার বলেন, কখনো কখনো দুদকের আইনজীবী থাকেন না।

আদালতের আদেশ যথাযথভাবে দুদকে কমিউনিকেটও হয় না। খুরশীদ আলম খান বলেন, কর্মকর্তা না দেওয়া পর্যন্ত দুদকসংশ্লিষ্ট বিষয়ে তাঁকে জানানো হলে, তিনি তা দুদককে অবহিত করবেন।

একাধিক আইনজীবীর ভাষ্যমতে, বেঞ্চের অপর বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমান বলেন, দুদকের কি আর কাজ নেই। একজন অফিসার এখানে এসে বসে থাকবেন। নেতৃত্বদানকারী বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার বলেন, সেকেন্ড জজ এত কথা বললে সমস্যা। আদালতের ডেকোরাম আছে। একপর্যায়ে জ্যেষ্ঠ বিচারপতি এজলাস ত্যাগ করেন। এ সময় রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আমিন উদ্দিন মানিক উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন