বান্দরবানের চাষিরা দেশের ৯ শতাংশ আদার চাহিদা পূরণ করলেও কতিপয় ব্যাংক কর্মকর্তার অসহযোগিতার কারণে দেড় হাজারেরও বেশি চাষির বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। হয়রানির শিকার অনেক কৃষক আদা চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন।
গতকাল মঙ্গলবার জেলা প্রশাসকের কার্যালয় মিলনায়তনে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় আদাচাষিরা এ কথা বলেন।
জেলা প্রশাসক মিজানুল হক চৌধুরী আদাচাষিদের সঙ্গে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করেন। মতবিনিময় সভায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আলতাফ হোসেন, বিভিন্ন ব্যাংকের কর্মকর্তা এবং আদাচাষি সমিতির সভাপতি চিংসাবু মার্মা উপস্থিত ছিলেন।
চিংসাবু মার্মা বলেন, ২০১১-১২ সালে আদার দাম কমে যাওয়ায় ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়া চাষিরা সংকটে পড়েছেন। কতিপয় ব্যাংক কর্মকর্তা কোনো কিছু বিবেচনায় না নিয়ে ঢালাওভাবে কৃষকদের বিরুদ্ধে অর্থঋণ আদালতে মামলা করেছেন। তিনি খেলাপি ঋণের সুদ মওকুফ করাসহ বিভিন্ন দাবি জানান।
আলতাফ হোসেন বলেন, বিভিন্ন সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও জেলায় এ বছর ১ হাজার ৫৭৪ হেক্টর জমিতে ২২ হাজার ১০০ টন আদা উৎপাদিত হয়েছে। এটা দেশের চাহিদার ৯ শতাংশ। কিছু উদ্যোগ নেওয়া হলে উৎপাদন দ্বিগুণ-তিন গুণ বাড়ানো সম্ভব।
জেলা প্রশাসক মিজানুল হক চৌধুরী কৃষকদের ঋণের সুদ মওকুফের ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করার আশ্বাস
দেন।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন