default-image

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাংলাদেশ সফরের মধ্য দিয়ে দুই দেশের মধ্যকার সব অমীমাংসিত বিষয়ের সমাধান হবে বলে আশা প্রকাশ করছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। আজ শুক্রবার বঙ্গভবনে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে যান মমতা। এ সময় রাষ্ট্রপতি এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন। খবর বাসসের।

রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব এহসানুল করিম বাসসকে এ কথা বলেছেন। প্রেস সচিবের উদ্ধৃতি দিয়ে বাসস জানিয়েছে, আবদুল হামিদ বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত, বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে বাণিজ্য অবকাঠামো উন্নয়ন ও আন্তযোগাযোগ বৃদ্ধিতে বাংলাদেশের উদ্যোগের কথা বৈঠকে তুলে ধরেন।

দুই দেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক বিনিময় প্রসঙ্গে মমতা বলেন, একসঙ্গে বসে সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সব সমস্যার সমাধান করা যাবে। এ সময় তিনি দুই দেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজনের পরিকল্পনার কথাও রাষ্ট্রপতির কাছে তুলে ধরেন।

মমতা বলেন, দুই দেশের মধ্যে বিশেষ করে পশ্চিবঙ্গের সঙ্গে পর্যটন খাতে পারস্পরিক সম্পর্ক বিকাশের সুযোগ রয়েছে। এই খাত বিকশিত হলে বিদেশি পর্যটকেরা দুই দেশেই সফরে আসতে আরও আগ্রহী হবে।
এ সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আবদুল হামিদের কাছে আগরতলা-ঢাকা-কলকাতার মধ্যে সরাসরি বাস সার্ভিস ও খুলনা-কলকাতার মধ্যে ট্রেন সার্ভিস চালুর বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেন।
মমতা বলেন, পশ্চিমবঙ্গ সরকার কলকাতায় ‘নজরুল তীর্থ’ ও আসানশোলে ‘কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়’ স্থাপনে পদক্ষেপ নিয়েছে।
কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ প্রতিষ্ঠা এবং ‘নজরুল তীর্থ’ ও ‘কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়’ স্থাপনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আগ্রহ প্রকাশ করায় ধন্যবাদ জানান রাষ্ট্রপতি হামিদ। তিনি বলেন, এসব উদ্যোগের মধ্য দিয়ে দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরও গভীর হবে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন