এ ছাড়া বহু মানুষ ইতিমধ্যে করোনার টিকা পেয়েছেন। সে কারণে মহামারির চতুর্থ ঢেউ এলেও তা তীব্রতর হওয়ার শঙ্কা কম। তবে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এ ছাড়া পরিস্থিতি মোকাবিলায় থাকতে হবে সব ধরনের প্রস্তুতি।

সংবাদ ব্রিফিংয়ের শুরুতে এ জনস্বাস্থ্যবিধি বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কের কথা তুলে ধরে বলেন, ৭৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে সিডিসি বিশ্বব্যাপী জরুরি স্বাস্থ্য অবস্থা শনাক্তকরণ, প্রতিকার ও মোকাবিলা, নতুন রোগের জীবাণু আবিষ্কার ও জনস্বাস্থ্য গবেষণায় বিভিন্ন দেশের সক্ষমতা জোরদারে সহায়তা করছে।

নিলি কায়দোস ড্যানিয়েল বলেন, বাংলাদেশসহ ৫০টি দেশে সিডিসির অফিস আছে।

বাংলাদেশে তারা সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) এবং আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণাকেন্দ্র, বাংলাদেশের (আইসিডিডিআরবি) সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে। অতীতে নিপাহ ভাইরাস শনাক্তকরণে এই দুই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সিডিসি কাজ করেছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন