বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউট

মাংস, দুধ ও দুগ্ধজাত পণ্যে ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া

বিজ্ঞাপন
default-image

গরু ও মহিষের মাংস এবং দুধের মধ্যে নানা ধরনের ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি ও ক্ষতিকর উপাদান পাওয়া গেছে৷
স্থানীয় বাজারগুলোতে গরু ও মহিষ জবাই থেকে শুরু করে মাংস বিক্রয় পর্যন্ত প্রতিটি স্তরে স্বাস্থ্যসম্মত প্রক্রিয়া অনুসরণ ও পরিষ্কার পানি ব্যবহার না করায় ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ ঘটছে৷ এমনকি সুপারশপ ও চেইনশপগুলোতেও একই অবস্থা দেখা গেছে৷
গবেষণায় গরু-মহিষ জবাইয়ের পর পাঁচ ঘণ্টা পর্যন্ত পর্যবেক্ষণ করা হয়। এই সময়ের মধ্যে মাংসে কলিফর্ম নামে একধরনের ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া তৈরি হতে দেখা গেছে।
বিভিন্ন বাজারে প্রাপ্ত দুধে ভারী ধাতু যেমন: িসসা ও ক্যাডমিয়াম পাওয়া গেছে৷ প্যাকেটজাত দুধের চেয়ে খোলা দুধের মধ্যে কলিফর্ম ব্যাকটেরিয়ার পরিমাণ বেশি পাওয়া গেছে৷
যা প্রমাণ করে এসব দুধে পুকুর-নদী বা অন্য কোনো অপরিশোধিত উৎস থেকে পানি মেশানো হয়। নাইট্রাইটের প্রধান উৎসগুলো হচ্ছে
রাসায়নিক সার, জীবজন্তুর মলমূত্র, অপরিশোধিত পয়োনিষ্কাশন বর্জ্য, উদ্ভিদ ও প্রাণীর পচনশীল উপাদান।
বাজারে কৃত্রিম দুধের উৎপাদন ও সরবরাহ ক্রমে বাড়ছে। নিম্নমানের গুঁড়া দুধ, আটা, ময়দা, অ্যারারুট, সালফিউরিক অ্যাসিড, সরিষার তেল ও মবিল মিশিয়ে এই দুধ তৈরি করা হচ্ছে৷

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন