আজ বুধবার সচিবালয়ের গণমাধ্যম কেন্দ্রে ‘দুর্যোগ মোকাবিলায় কতটা প্রস্তুত আমরা’ শীর্ষক এক সংলাপ অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এ সংলাপের আয়োজন করে বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ)। প্রতিমন্ত্রী ছাড়াও সংলাপে আরও বক্তব্য দেন বিএসআরএফের সভাপতি তপন বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক মাসউদুল হক।

টিআর ও কাবিখার কাজের বিভিন্ন জায়গায় অনিয়মের অভিযোগ ওঠা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী মো. এনামুর রহমান বলেন, মাঠপর্যায়ে যেসব কাজ হয়, সেগুলো প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার (পিআইও) একার তত্ত্বাবধানে থাকে না। প্রতিটি কাজের জন্য প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) করা হয়। সেই কমিটির সভাপতি থাকেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)। সদস্য হিসেবে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যরা থাকেন। উপদেষ্টা হিসেবে স্থানীয় সংসদ সদস্যরা থাকেন। বিভিন্ন এনজিওর কর্মকর্তারাও এ কাজে সম্পৃক্ত থাকেন। সবাই মিলেই কাজ করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘তারপরেও এই অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করি, বিভিন্ন জায়গায় অনিয়ম হয়। এখনো মাঠপর্যায়ে এই অনিয়ম-দুর্নীতি শতভাগ দূর করতে পারিনি। তবে আমরা খুবই সতর্ক, যেখানেই সংবাদ পাচ্ছি, সেখানেই তদন্ত করে যারা দোষী, তাদের শাস্তি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে অনেককেই শাস্তি দেওয়া হয়েছে।’

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় এখন বিশ্বে একটি রোল মডেল। এ সময় তিনি জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি মুন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বক্তব্য এবং ২০২১ সালে জাতিসংঘের পুরস্কার পাওয়ার কথা তুলে ধরেন।

জরাজীর্ণ ভবন ভেঙে ভূমিকম্প সহনীয় করা, বজ্রপাতে মৃত্যু কমাতে সচেতনতামূলক প্রচারণা চালানো, আগামী সতর্ক ব্যবস্থা চালু করাসহ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বিভিন্ন পরিকল্পনার কথা জানান প্রতিমন্ত্রী।

এনামুর রহমান বলেন, ঘূর্ণিঝড় ‘অশনি’ নিয়ে শঙ্কায় ছিলেন। সেটি ভারতের অন্ধ্র প্রদেশে আঘাত হেনে দুর্বল হয়ে গেছে। এটি নিয়ে এ মুহূর্তে আর দুশ্চিন্তা নেই।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন