মন্ত্রিসভার বৈঠকে মাঠপর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাদের অর্থ বরাদ্দ ও ব্যয়ের ক্ষমতা বাড়ানো হয়েছে। এর পরিমাণ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলো ঠিক করবে।
গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা সভার সিদ্ধান্ত সাংবাদিকদের জানান।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বৈঠকে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নসংক্রান্ত আর্থিক ক্ষমতা অর্পণ এবং অনুন্নয়ন বাজেটের আর্থিক ক্ষমতা অর্পণ ও পুনঃ অর্পণসংক্রান্ত সংশ্লিষ্ট পরিপত্রগুলো সংশোধনের প্রস্তাব অনুমোদিত হয়েছে। এতে মাঠ প্রশাসনে সরকারি কর্মকর্তাদের আর্থিক ক্ষমতা বাড়বে।গতকালের সভায় বাংলাদেশ রেলওয়ে বোর্ড (রহিতকরণ) আইন, ২০১৪-এর ব্যাপারে গত ১৪ জুলাই অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকের সিদ্ধান্ত বাতিলের প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়। পরে তা যাচাই-বাছাইয়ের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হলে আইনটির প্রয়োজন নেই বলে মতামত আসে। ফলে মন্ত্রিসভা এর আগে দেওয়া নীতিগত অনুমোদনটি বাতিল করে। মন্ত্রিসভা কোনো অনুমোদন বাতিল করলেও তা মন্ত্রিসভায় আনতে হয় বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।
গতকালের বৈঠকে নিজ মন্ত্রণালয়ের এজেন্ডা থাকলেও নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান সভায় অংশ না নেওয়ায় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের একটি আইনও আলোচনায় আসেনি। ১৯০৮ সালের পোর্টস অ্যাক্ট সংশোধন প্রস্তাব আলোচ্যসূচিতে ছিল। বৈঠক চলাকালে হরতাল-অবরোধের প্রতিবাদে শ্রমিক-কর্মচারী-পেশাজীবী-মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় পরিষদের ব্যানারে গুলশানে খালেদা জিয়ার কার্যালয় ঘেরাও করেন নৌমন্ত্রী শাজাহান খান।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন