default-image

মাহমুদুর রহমান মান্নাকে নিয়ে কিছু বলতে বিব্রতবোধ করেন বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। মান্নার সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড ও টেলিফোন আলাপে জাতি বিস্মিত হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তোফায়েল।
আজ বুধবার সচিবালয়ে ঢাকায় নিযুক্ত সুইডেনের রাষ্ট্রদূত জোহান ফ্রিসেলের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী এমন মন্তব্য করেন।
হরতাল-অবরোধে বিএনপির চলমান কর্মসূচিকে সন্ত্রাসী, নাশকতামূলক ও জঙ্গি তৎপরতা হিসেবে আখ্যায়িত করে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড হলে না-হয় আলোচনায় বসা যায়, অতীতেও সেই আলোচনা হয়েছে। কিন্তু এগুলো তো অরাজনৈতিক কর্মকাণ্ড। এগুলো রাজনীতির নামে সন্ত্রাসী, নাশকতামূলক ও জঙ্গি তৎপরতা।’
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, বিষয়টি খালেদা জিয়াকে আইনগতভাবেই মোকাবিলা করতে হবে। এর পেছনে কোনো রাজনৈতিক প্রতিহিংসা রয়েছে কি না, জানতে চাইলে তোফায়েল বলেন, ‘আমরা প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বাস করি না, যা বিএনপি করে।’

খালেদা জিয়াকে ইঙ্গিত করে তোফায়েল বলেন, তাঁর নামে একটা মামলা রয়েছে, সেটা তাঁর মোকাবিলা করা উচিত। কিন্তু তিনি অনেক দিন আদালতে উপস্থিত হননি।
তোফায়েল আরও বলেন, ‘উনি কোনো কিছুই পরোয়া করেন না। বিশ্ব ইজতেমার সময়ও তিনি হরতাল-অবরোধ দিয়ে রেখেছেন এবং ২১ ফেব্রুয়ারিতেও তা অব্যাহত রেখেছেন। এসব কারণে ১৫ লাখ ছেলেমেয়ে নিয়মিতভাবে পরীক্ষা দিতে পারছে না।’
হরতাল বিষয়ে তোফায়েল বলেন, হাইকোর্ট একটা পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন। কিন্তু তাঁরা গোপন স্থান থেকে হরতাল দিয়েই যাচ্ছেন। সালাউদ্দিন যে কর্মসূচি দেন, সেটা তাঁর কর্মসূচি কি না, সেটাই বা কে জানে? বাস্তবে দেশের কোথাও হরতাল নেই। হঠাৎ কোথাও কোথাও দু-চারটি ঘটনা ছাড়া সবকিছইু স্বাভাবিক।
ডাকসু নেতা মাহমুদুর রহমান মান্নার টেলিফোন আলাপ এবং গ্রেপ্তার করা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মান্নার নাম নিয়ে কিছু বলতে আমি বিব্রতবোধ করি। তাঁর সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড ও টেলিফোন আলাপে জাতি বিস্মিত হয়েছে। দেশ ও জাতি তাঁর কাছে এটা প্রত্যাশা করে না।’
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যাঁরা টক শোতে গিয়ে এত নীতি কথা বলেন, বাস্তবে তাঁরা কী, মাহমুদুর রহমান মান্না নিজেই সেটা প্রকাশ করে দিয়েছেন।’

আরও পড়ুন:

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন