ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্রসংসদ—ডাকসু ও চাকসুর সহসভাপতি (ভিপি)-সাধারণ সম্পাদকদের (জিএস) নামের তালিকা থেকে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার নাম মুছে ফেলেছেন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। একই সঙ্গে তাঁরা ডাকসু সংগ্রহশালার দেয়ালে টাঙানো মান্নার একটি ছবি নামিয়ে তাতে আগুন দেন।
গতকাল মঙ্গলবার বেলা সোয়া একটার দিকে ডাকসু ভবনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার নেতৃত্বে থাকা ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি জয়দেব নন্দী বলেন, ‘যে ব্যক্তি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লাশ ফেলার কথা বলেন, তাঁর নাম কখনো ডাকসুর মতো জায়গায় থাকতে পারে না। তাই একজন সচেতন শিক্ষার্থী হিসেবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিয়ে তাঁর ছবি পুড়িয়ে ফেলেছি, ভিপিদের নামফলক থেকে তাঁর নাম মুছে দিয়েছি।’
এর পরপরই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির নেতা-কর্মীরা চাকসু ভবনের তিনতলায় গিয়ে সেখানে থাকা নামফলক থেকে মাহমুদুর রহমান মান্নার নাম কালো কালি দিয়ে মুছে দেন। এ সময় তাঁরা চাকসু কার্যালয়ের সংগ্রহশালায় থাকা মান্নার ছবি উপড়ে ফেলারও চেষ্টা করেন। এ প্রসঙ্গে বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক এম এ খালেদ চৌধুরী বলেন, ‘মান্নার মতো ব্যক্তির কোনো অধিকার নেই ছাত্র প্রতিনিধির তকমা ব্যবহার করার। তাঁকে বিশ্ববিদ্যালয়ে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে। আমরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে তাঁর সনদ বাতিলের দাবি জানাই।’
যোগাযোগ করা হলে ডাকসুর সাবেক ভিপি আ স ম আবদুর রব প্রথম আলোকে বলেন, ‘সমাজে ভিন্নমত থাকতেই পারে। তাই বলে কারও অতীত ইতিহাস মুছে ফেলা যায় না। এটা নিন্দনীয়।’

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন