default-image

চোরাই পথে মহিষ আনার অভিযোগে সিলেটে করা একটি মামলায় এক শিশুকে আসামি করার বিষয়ে ব্যাখ্যা জানতে মামলাটির বাদী বিজিবির নায়েব সুবেদার মো. সাহাব উদ্দিনকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। আগামী ৭ অক্টোবর তাঁকে আদালতে হাজির হয়ে এ ব্যাখ্যা জানাতে বলা হয়েছে।
মামলায় ওই শিশু, তার মা–বাবাসহ ১০ জন হাইকোর্টে হাজির হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে আগাম জামিনের আবেদন করেন। শুনানি নিয়ে গতকাল রোববার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ তাঁদের আট সপ্তাহের জন্য আগাম জামিন দিয়ে ওই আদেশ দেন।

বিজ্ঞাপন

১৪ সেপ্টেম্বর ওই শিশু ও তার মা–বাবাসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে সিলেটের জৈন্তাপুর মডেল থানায় মামলাটি করেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) নায়েব সুবেদার মো. সাহাব উদ্দিন। গতকাল শিশুসহ ১০ জন আগাম জামিনের জন্য আদালতে হাজির হলে তাঁদের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ও শারফ উদ্দিন আবেদ। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল হাছিনা মমতাজ।


পরে সারওয়ার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, আদালতের জিজ্ঞাসার জবাবে শিশুটি জানায়, তার বয়স ১২ বছর ও সে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে। অথচ এজাহারে শিশুটির বয়স ১৯ বছর উল্লেখ করা হয়েছে। আদালতের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে শিশুটির বয়স ১২ বছর। তাই শিশুটিকে এই মামলায় কীভাবে আসামি করা হলো, সে বিষয়ে ব্যাখ্যা জানাতে বাদীকে ৭ অক্টোবর আদালতে হাজির হতে বলা হয়েছে। তিনি বলেন, শিশুটিকে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদকের দায়িত্বে সেদিন আদালতে নিয়ে আসতে বলা হয়েছে। শিশুটির জন্মসনদও দিতে বলা হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0