বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মন্ত্রী আব্দুল মোমেন বলেন, এই ২৪ কোটি ডোজ টিকার অধিকাংশই আসছে কোভ্যাক্স কাঠামোর আওতায়। গত মাসে জেনেভায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মহাপরিচালকের সঙ্গে তাঁর বৈঠকের পর টিকা সংগ্রহের এ ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন আরও বলেন, ‘আমরা ২৬ কোটি ডোজ টিকা চেয়েছি। তবে তারা ২৪ কোটি টিকার অনুমোদন দিয়েছে। আমরা ২৪ কোটি ডোজ টিকা পেয়ে খুশি।’ পরে ডব্লিউএইচও দুই কোটি ডোজ টিকা দেওয়ার চেষ্টা করবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

মন্ত্রী মোমেন বলেন, বাংলাদেশের ২৬ কোটি ডোজ টিকা প্রয়োজন। তাই কিছু টিকা দেশেই উৎপাদন করা হবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশের ২ কোটি ২২ লাখ লোক ইতিমধ্যে ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাশিয়ার করোনা পরিস্থিতির কারণে দেশটির সঙ্গে ভ্যাকসিনের ব্যাপারে সহযোগিতার ক্ষেত্রে নতুন কোনো অগ্রগতি হয়নি।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন