ফাইল ছবি

মালয়েশিয়ায় কর্মী হিসেবে যেতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোতে (বিএমইটি) নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বিএমইটি গতকাল রোববার এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে। জেলা কর্মসংস্থান অফিস বা অনলাইনে ‘আমি প্রবাসী’ অ্যাপে এ নিবন্ধন করতে পারবেন মালয়েশিয়ায় কর্মী হিসেবে যেতে ইচ্ছুক ব্যক্তিরা।

বিএমইটির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসী আইন অনুযায়ী, বিএমইটি ডেটাবেইজ নিবন্ধিত কর্মীর তালিকা থেকে বৈদেশিক কর্মসংস্থানের জন্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে দৈবচয়নের ভিত্তিতে কর্মী নির্বাচন করার বিধান রয়েছে। সেই অনুযায়ী, মালয়েশিয়া যেতে ইচ্ছুক কর্মীদের বিএমইটি ডেটাবেইজে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার অনুরোধ করা যাচ্ছে।

নিবন্ধন কীভাবে করতে হবে, তা–ও বলে দেওয়া হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। বিএমইটির আওতাধীন জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিস অথবা নির্ধারিত কারিগরি প্রশিক্ষণকেন্দ্রে (টিটিসি) সরাসরি উপস্থিত হয়ে নিবন্ধন করা যাবে। নিবন্ধনের জন্য ২০০ টাকা সরকারি ফি (অফেরতযোগ্য) পরিশোধ করতে হবে। এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্যের জন্য জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিস বা টিটিসির সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

ডেটাবেইজে নিবন্ধনের জন্য ঐচ্ছিক ও অতিরিক্ত চ্যানেল হিসেবে সরকার অনুমোদিত ‘আমি প্রবাসী’ অ্যাপ ব্যবহার করে নিবন্ধন করা যাবে। এ ক্ষেত্রে নিবন্ধনের জন্য সরকারি নিবন্ধন ফি ২০০ টাকার সঙ্গে অতিরিক্ত ‘আমি প্রবাসী’ অ্যাপের সার্ভিস চার্জ করসহ ১০০ টাকা পরিশোধ করতে হবে।

বিএমইটি বলছে, কর্মীর বয়স ১৮-৪৫ বছরের মধ্যে হতে হবে। নিবন্ধন নম্বর ও এর কার্যকারিতা নিবন্ধনের তারিখ থেকে দুই বছর বহাল থাকবে।

ইতিমধ্যে যাঁরা বিদেশ গমনের জন্য নিবন্ধন করেছেন, তাঁদের নতুন করে নিবন্ধনের প্রয়োজন নেই। তবে নিবন্ধনকালে কাঙ্ক্ষিত দেশ ও পেশা নির্বাচন করা না থাকলে আপডেট করা যাবে। কারিগরি প্রশিক্ষণকেন্দ্র (টিটিসি) এবং ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজি (আইএমটি), অথবা প্রতিষ্ঠান থেকে অর্জিত দক্ষতা সনদ আপলোড করলে দক্ষ কর্মীরা বৈদেশিক কর্মসংস্থানের জন্য অগ্রাধিকার পাবেন।

নিবন্ধনের জন্য যে কাগজপত্র লাগবে

পাসপোর্ট, পাসপোর্ট সাইজের ছবি, নিজের মুঠোফোন নম্বর, ই–মেইল (যদি থাকে), দক্ষতা সনদ (যদি থাকে)।