বিজ্ঞাপন

মাহমুদা হত্যাকাণ্ডের তিন সপ্তাহ পর মো. ওয়াসিম ও মো. আনোয়ার নামের দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাঁরা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। তাঁরা বলেন, কামরুল শিকদার ওরফে মুসার নেতৃত্বে হত্যাকাণ্ডে তাঁরা সাত-আটজন অংশ নেন। বাবুল চট্টগ্রামে দায়িত্ব পালনের সময় মুসা তাঁর ঘনিষ্ঠ সোর্স হিসেবে কাজ করতেন। তাঁর খোঁজ পায়নি পুলিশ।

ডিবি পুলিশের পর গত বছরের মে মাস থেকে মামলাটি তদন্ত শুরু করে পিবিআই। আদালত স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলাটি তদন্তের জন্য পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেন।
পিবিআই গত বুধবার এই মামলায় আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয়। ওই দিন বাবুলের শ্বশুর মোশাররফ হোসেন বাদী হয়ে বাবুলসহ আটজনকে আসামি করে পাঁচলাইশ থানায় মামলায় করেন। এই মামলায় বাবুলকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পিবিআই। গত বুধবার এই মামলার কারাগারে থাকা দুই আসামিকে শ্যোন অ্যারেস্ট (গ্রেপ্তার) দেখানোর আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআই চট্টগ্রামের পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা। আদালত রোববার শুনানির জন্য দিন ধার্য রাখেন।

নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) কাজী শাহাবুদ্দিন আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, শুনানি শেষে আদালত এই মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে থাকা দুই আসামিকে নতুন মামলায় গ্রেপ্তার দেখান।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন