বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পরিবারের দাবি, এই খুনের ঘটনায় প্রতিবেশী তাজুল ইসলাম, তাঁর ছেলে তোফাজ্জল হোসেন, নুরুল হুদাসহ আরও কয়েকজন জড়িত। পুলিশ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সূত্রে জানা যায়, বাড়ির পাশের একটি জমি নিয়ে এক প্রতিবেশীর সঙ্গে বিরোধ ছিল মো. শাহজাহানের। গতকাল সকালে বিরোধপূর্ণ সে জমিতে প্রতিবেশী মাটি কাটতে চাইলে বাধা দেন তিনি। এ সময় বাগ্‌বিতণ্ডার একপর্যায়ে ওই প্রতিবেশীর লোকজনের আঘাতে গুরুতর আহত হন তিনি। আহত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে দুপুরে মৃত্যু হয় তাঁর।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. ইউছুফ প্রথম আলোকে বলেন, ‘জমিসংক্রান্ত বিরোধে বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শাহজাহান খুন হয়েছেন বলে জেনেছি। তবে বিস্তারিত জানি না। শাহজাহানের তিন মেয়ে ও এক ছেলে রয়েছে। ছেলেটি প্রবাসী।’

জমির বিরোধে প্রতিপক্ষের হাতে বীর মুক্তিযোদ্ধা খুনের বিষয়ে জানতে চাইলে জোরারগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. হেলাল উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘প্রতিবেশীর সঙ্গে জমিসংক্রান্ত বিরোধে বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শাহজাহানের খুনের খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি আমরা। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রাখা হয়েছে। থানায় এখনো অভিযোগ করা না হলেও খুনের ঘটনাটির তদন্ত প্রক্রিয়া শুরু করেছি আমরা।’

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন