default-image

মুক্তিযুদ্ধের পক্ষশক্তি হিসেবে মৌলবাদীদের বিরুদ্ধে আমৃত্যু লড়াই করে গেছেন দৈনিক জনকণ্ঠ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক মোহাম্মদ আতিকউল্লাহ খান মাসুদ।

তাঁর মৃত্যুতে জাতি একজন লড়াকু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মানুষকে হারিয়েছে। তাঁর স্মরণসভায় শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বক্তারা এসব কথা বলেন।

জনকণ্ঠ ইউনিট (ডিইউজে) ও দৈনিক জনকণ্ঠ সাংবাদিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ এই স্মরণসভার আয়োজন করে। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

বিজ্ঞাপন

স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শফিকুর রহমান বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের অন্যতম প্রতিষ্ঠান দৈনিক জনকণ্ঠ। এই প্রতিষ্ঠানে মুক্তবুদ্ধি চর্চা ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী মানুষের প্রাণ খুলে লেখা ও বলার জায়গা করে দিয়েছিলেন আতিকউল্লাহ খান মাসুদ। তিনি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে অবিচল ছিলেন।’

বক্তব্যের একপর্যায়ে দৈনিক জনকণ্ঠের ছাঁটাই করা কর্মীদের চাকরিতে পুনর্বহালের অনুরোধ জানান এই সাংবাদিক নেতা।

সাংবাদিক রাজন ভট্টাচার্যের সভাপতিত্বে স্মরণসভায় আরও বক্তব্য দেন দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের প্রচার সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস, সাংবাদিক ফিরোজ মান্না, বিভাষ বাড়ৈ প্রমুখ।

গত ২২ মার্চ ঢাকায় মারা যান ৭১ বছর বয়সী আতিকউল্লাহ খান মাসুদ। তিনি ১৯৫১ সালের ২৯ আগস্ট মুন্সিগঞ্জ জেলার মেদিনীমণ্ডল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে তিনি ২ নম্বর সেক্টরে যুদ্ধ করেছিলেন। আতিকউল্লাহ খান মাসুদ গ্লোব-জনকণ্ঠ শিল্প পরিবারের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন