বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রথম আলোকে এই তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ওই ট্রাইব্যুনালের বেঞ্চ সহকারী শামীম আল মামুন।

এ ব্যাপারে ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) নজরুল ইসলাম বলেন, ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত হানে এমন উসকানিমূলক বক্তব্য প্রচারের অভিযোগে গত বছরের ৪ জানুয়ারি খোকন সাহা ও প্রদীপ দাসের বিরুদ্ধে মামলা করেন নারায়ণঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত আইভী। আদালতের নির্দেশে তদন্ত শেষে পুলিশের অপরাধ ও তদন্ত বিভাগ এই দুই আসামির বিরুদ্ধে সম্প্রতি আদালতে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। বৃহস্পতিবার আদালত ওই প্রতিবেদন আমলে নিয়ে খোকন ও প্রদীপ দাসের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশ দিয়েছেন।

মামলার আরজিতে মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী দাবি করেন, আসামি প্রদীপ দাস ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করে, এমন মিথ্যা ও মানহানিকর উসকানিমূলক ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করেছেন। ২০২০ সালের ২৩ নভেম্বর ইউটিউব চ্যানেলে প্রদীপ দাস তাঁর সম্পর্কে ভিত্তিহীন ও উসকানিমূলক তথ্য প্রচার করেন। আসামি খোকন সাহাও ইউটিউব চ্যানেলে ভিত্তিহীন ও মানহানিকর তথ্য প্রচার করেন। হিন্দুদের দেবোত্তর সম্পত্তি দখলের ভিত্তিহীন, আপত্তিকর তথ্য প্রচার করা হয়।

মেয়র আইভী মামলায় আরও দাবি করেন, আসামি প্রদীপ দাস ও খোকন সাহা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিরুদ্ধে ধর্মীয় মূল্যবোধ ও অনুভূতিতে আঘাত করে সামাজিক স্থিতিশীলতা ও রাজনৈতিক ফায়দা নেওয়ার জন্য ইউটিউব-ফেসবুকে মিথ্যা ভিত্তিহীন তথ্য প্রচার করেন। আসামিরা মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর তথ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ করেছেন, যা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন