নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে বাংলাবাজার এলাকায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ছাত্রলীগের দুই নেতা মারা গেছেন। আজ সোমবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় ছাত্রলীগের আরেক নেতা গুরুতর আহত হয়েছেন।

নিহত ছাত্রলীগ নেতারা হলেন সদর উপজেলার হাজীরহাট এলাকার এনামুল হকের ছেলে ইসমাইল হোসেন (২৫) ও একই এলাকার আবদুল মান্নানের ছেলে মো. তারেক (২২)। আহত হয়েছেন আবুল হাসেম (২২)। আজ বিকেলে নোয়াখালী শহরে হরতাল-অবরোধবিরোধী বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে তাঁরা তিনজনই একসঙ্গে মোটরসাইকেলে চড়ে বাড়ি ফিরছিলেন।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইবনে ওয়াজেদ ওরফে ইমন প্রথম আলোকে বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, নিহত ইসমাইল ধর্মপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি পদে প্রার্থী ছিলেন। এ ছাড়া তারেক ও হাসেম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক কমিটির সদস্য। তিনি আরও জানান, সমাবেশ শেষে বাড়ি ফেরার পথে তাঁদের মোটরসাইকেলটি নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে বাংলাবাজার এলাকায় গেলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশের একটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে ওই হতাহতের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুর্ঘটনায় ছাত্রলীগের তিন নেতাই গুরুতর আহত হন। স্থানীয় লোকজন তাঁদের উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পথে ইসমাইল ও তারেক মারা যান। আহত হাসেমকে একই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী জানান, আহত আবুল হাসেমকে সন্ধ্যার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন জানান, লাশ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। তবে এখনো কোনো মামলা হয়নি।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন