যশোর জেনারেল হাসপাতালে দালালের কারাদণ্ড, বাইরের অ্যাম্বুলেন্স-চালকদের জরিমানা

বিজ্ঞাপন

সরকারি হাসপাতাল থেকে রোগী ভাগিয়ে ব্যক্তিগত ক্লিনিকে নেওয়ার চেষ্টার অপরাধে এক দালালকে কারাদণ্ডের পাশাপাশি বিভিন্ন অপরাধে কয়েকজনকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে যশোর জেনারেল হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে।

যশোর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী হাকিম মো. নূরুল ইসলামের নেতৃত্বে হাসপাতালটিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত ওই অভিযান চালান। এতে রোগী ভাগিয়ে নেওয়ার চেষ্টার অপরাধে নয়ন হোসেন (২৩) নামের এক ব্যক্তিকে সাত দিনের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এ সময় অপর এক দালালকে দুই ঘণ্টা আটকে রেখে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ ছাড়া হাসপাতালের ভেতরে অ্যাম্বুলেন্সের স্ট্যান্ড বানিয়ে যানজট সৃষ্টি ও রোগীদের হয়রানি করার অপরাধে ৯টি অ্যাম্বুলেন্সের চালকের কাছ থেকে ৫০০ টাকা করে ও নির্দিষ্ট সময়ের বাইরে (শনি ও মঙ্গলবার) হাসপাতালে ঘোরাঘুরির অপরাধে ওষুধ কোম্পানির দুই প্রতিনিধির কাছ থেকে ২০০ টাকা করে জরিমানা আদায় করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, তাঁরা গিয়ে দেখেন, কয়েকজন দালাল রোগীদের ভুল বুঝিয়ে বাইরের ব্যক্তিগত হাসপাতাল-ক্লিনিকে ভাগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছেন। এ সময় তাঁদের আটক করা হয়। এঁদের মধ্যে নয়ন হোসেনকে সাত দিনের কারাদণ্ড ও আসাদ নামে অপরজনকে দুই ঘণ্টা আটকে রেখে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। দুজনই শহরের ঘোপ জেল সড়কের বাসিন্দা।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্র জানায়, অভিযানের সময় দেখা গেছে, হাসপাতালের ভেতরে বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিকের ওই ৯টি অ্যাম্বুলেন্স স্ট্যান্ডের মতো বানিয়ে রোগী ধরার চেষ্টা করছিল। এতে হাসপাতালের ভেতরে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

নির্বাহী হাকিম মো. নুরুল ইসলাম শাস্তির বিষয়গুলো নিশ্চিত করে বলেন, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন-২০০৯ অনুযায়ী হাসপাতালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের এই অভিযান পরিচালিত হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন