রাজধানীর মধ্য বাড্ডায় তিন খুনের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের দুই নেতাকে নজরদারিতে রেখেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। ডিবি বলেছে, গতকাল রোববার ভোর থেকে তাঁদের ওপর নজরদারি শুরু হয়েছে। তবে এই দুজনের নাম প্রকাশ করেননি ডিবির কর্মকর্তারা।
এদিকে গত শনিবার আটক করা স্থানীয় যুবলীগের নেতা ফারুক মিলনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ডিবি পুলিশ।
তিন খুনের ঘটনায় শনিবার রাতে বাড্ডা থানায় হওয়া মামলাটি তদন্ত করছে ওই থানার পুলিশ। স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা নিহত মাহবুবুর রহমান ওরফে গামার বাবা মতিউর রহমান বাদী হয়ে ১০ থেকে ১২ জন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে আসামি করে ওই মামলা করেন। ডিবি পুলিশ মামলার ছায়া তদন্ত করছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. মাহফুজুল ইসলাম গতকাল প্রথম আলোকে জানান, আধিপত্য বিস্তার, ঝুট ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ ও পূর্বশত্রুতার জের ধরে তিনটি খুন হয়েছে। খুনিদের কয়েকজন শনাক্ত হয়েছে। শিগগিরই তাদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে। তিনি আরও জানান, বাড্ডার শীর্ষ সন্ত্রাসী বাউল সুমনের স্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদের পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।
গত বৃহস্পতিবার রাতে মধ্য বাড্ডার আদর্শনগরে একটি পানির পাম্পের সামনে চেয়ারে বসে থাকা আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাসহ চারজনকে গুলি করে দুর্বৃত্তরা।
তাঁদের মধ্যে ঢাকা উত্তরের ৬ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শামসু মোল্লা, ঢাকা মহানগর উত্তর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান ওরফে গামা এবং স্থানীয় একটি হাসপাতালের সাবেক কর্মকর্তা ফিরোজ আহমেদ মারা যান। আহত আবদুস সালাম ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তিনি রিকশার গ্যারেজের মালিক। তাঁর স্বজনদের দাবি, সালাম স্থানীয় যুবলীগের নেতা।
এদিকে নিহত শামসু মোল্লার পরিবারের পক্ষ থেকে গতকাল মামলা করতে গেলেও তা নেওয়া হয়নি বলে পরিবারটির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। শামসু মোল্লার ভগ্নিপতি পলাশ অভিযোগ করেছেন, হত্যার ঘটনায় সাতজনের জড়িত থাকার বিষয়টি উল্লেখ করে মামলা করতে গেলে তাঁদের থানায় প্রায় ছয় ঘণ্টা বসিয়ে রেখে অভিযোগ মামলা হিসেবে গ্রহণ করেনি পুলিশ।
অবশ্য বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল জলিল জানান, একই ঘটনায় দুটি মামলা রেকর্ড করার কোনো বিধান নেই। তবে তাঁদের লিখিত অভিযোগটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) হিসেবে গ্রহণ করে তা
মামলার সঙ্গে সংযুক্ত করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, পুলিশ ওই অভিযোগও তদন্ত করবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন