বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গবেষকদের চাকরির মেয়াদ বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কৃষিভিত্তিক শিল্প আমরা গড়ে তুলতে চাই এবং সেটাই আমরা করব। এ বিষয়েও আমাদের গবেষকদের আমি সহযোগিতা চাই।’ তিনি গবেষকদের চাকরির মেয়াদ বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, ‘এক দিনে গবেষণা শেষ হয়ে যায় না। দীর্ঘদিন গবেষণা করতে হয়। তবে চাকরির একটা বয়স নির্দিষ্ট করা রয়েছে, যার পরে আর চাকরি করা যায় না। কিন্তু গবেষণায় সম্পৃক্ত সরকারি চাকুরেদের জন্য আমি একটা কথাই বারবার বলেছি, এই গবেষকদের কীভাবে আমরা প্রণোদনা দিতে পারি, যাতে গবেষণার ফসল তাঁরা হাতে পাওয়া পর্যন্ত থাকতে পারেন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ জন্য তাঁর সরকার একবার উদ্যোগ নিলেও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাই এই সুযোগ নিতে চাওয়ায় সেটা আর সম্ভব হয়নি।
উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘অফিসের পিয়ন, আরদালি, দারোয়ান থেকে শুরু করে কেউ আর বাদ যান না। এটা তো হয় না। এটাই আমাদের দেশে সমস্যা। কাজেই গবেষণায় যাঁরা সম্পৃক্ত, তাঁদের জন্য এটা কীভাবে করা যেতে পারে?’

শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বয়স সীমা বৃদ্ধি করায় সেখানে আর সমস্যা হচ্ছে না। কাজেই আমরা ইনস্টিটিউটগুলোতে কীভাবে এই প্রণোদনা দিতে পারি। সেই পরামর্শটা আপনাদের কাছ থেকে চাচ্ছি। কারণ, আমাদের কৃষি গবেষকদের আমরা আরও সুযোগ দিতে চাচ্ছি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের যাঁরা গবেষণায় নিয়োজিত রয়েছেন, তাঁদের সমস্যাবলি নিয়ে আলোচনার জন্য তাঁদের সঙ্গে একটি সরকারি মতবিনিময়ের ইচ্ছা আমার রয়েছে। ভবিষ্যতে সেই ধরনের একটা সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে, যাতে আমি জানতে পারি, আপনারা আরও কীভাবে গবেষণা চালিয়ে যেতে পারেন।’

default-image

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা দেন মৎস ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক। মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মেজবাউল ইসলাম স্বাগত বক্তৃতা দেন। আরও বক্তৃতা দেন বিএআরসির নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ মোহাম্মদ বখতিয়ার। সফল কৃষক মো. রফিকুল ইসলামও নিজস্ব অনুভূতি ব্যক্ত করে বক্তৃতা করেন।

দেশের কৃষিবিজ্ঞানীদের উদ্ভাবিত ধান, পাট, আখ, চা, রেশম, তুলা, বনজ ও মৎস সম্পদ থেকে নির্বাচিত ১০০টি প্রযুক্তি এটলাসে যুক্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া রয়েছে প্রযুক্তিগুলোর প্রয়োগে বেশ কিছু সাফল্যের গল্প, যা হতে পারে কৃষি উন্নয়নে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। দেশ-বিদেশের পাঠকের সুবিধার্থে এই এটলাসে বাংলার পাশাপাশি ইংরেজিও রাখা হয়েছে।

বিএআরসি (বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল) প্রকাশিত এবং সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর উদ্ভাবিত এই ‘১০০ কৃষিপ্রযুক্তি এটলাস’ আধুনিক কৃষি উন্নয়ন ও কৃষকদের জীবনমান উন্নয়নে যুগান্তকারী ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন