বিজ্ঞাপন

প্রতিবেদনে বলা হয়, গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে আজ সকাল ৮টা পর্যন্ত এ বিভাগে ৩ হাজার ৯৩৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৬৮২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আগের দিন এক দিনে বিভাগে সর্বোচ্চ ৮১৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ১৭ দশমিক ৩১ শতাংশ। এর আগের দিন শনাক্তের হার ছিল ১৫ দশমিক ৯৪ শতাংশ। তার আগের দিন ছিল ১৪ দশমিক ৫৩ শতাংশ।

নতুন ৬৮২ জন নিয়ে বিভাগে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪১ হাজার ২৪২। নতুন শনাক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে রাজশাহীতে শনাক্ত হয়েছেন সর্বোচ্চ ৩৩৯ জন (শনাক্তের হার ২০ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ)। এ ছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৬৮ জন (শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৫১ শতাংশ), নওগাঁয় ৬৪ জন (শনাক্তের হার ২০ দশমিক ৭১ শতাংশ), নাটোরে ৮২ জন (শনাক্তের হার ৩৬ দশমিক ৬০ শতাংশ), জয়পুরহাটে ৭২ জন (শনাক্তের হার ২২ দশমিক ৬৪ শতাংশ), বগুড়ায় ২৩ জন (শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬০ শতাংশ), সিরাজগঞ্জে ১৯ জন (শনাক্তের হার ১০ দশমিক ৯১ শতাংশ) ও পাবনায় ১৫ জন (শনাক্তের হার ২ দশমিক ৭১ শতাংশ) করোনা শনাক্ত হয়েছেন। নমুনা পরীক্ষায় গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ হার নাটোরে ৩৬ দশমিক ৬০ শতাংশ আর পাবনায় ২ দশমিক ৭১ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগের দিন মারা গেছেন ৭ জন। নতুন মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে রাজশাহী জেলায় সর্বোচ্চ পাঁচজন মারা গেছেন। এটি এক দিনে রাজশাহী জেলায় সর্বোচ্চ মৃত্যু। এর আগের দিন এ জেলায় এক দিনে সর্বোচ্চ তিনজনের মৃত্যু হয়েছিল। এ ছাড়া ২৪ ঘণ্টায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও বগুড়ায় দুজন করে মারা গেছেন। নাটোরে মারা গেছেন একজন। এ নিয়ে বিভাগের মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৩৩। তাঁদের মধ্যে সর্বোচ্চ বগুড়া জেলায় মারা গেছেন ৩২৪ জন। এ ছাড়া রাজশাহীতে ১০৩, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৬৪, নওগাঁয় ৪৯, নাটোরে ৩২, জয়পুরহাটে ১৪, সিরাজগঞ্জে ২৫ ও পাবনায় ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সুস্থ রোগী বেড়েছে
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রতিবেদন অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। এদিন সুস্থ হয়েছেন ৫১০ জন। আগের দিন সুস্থ হয়েছিলেন ১৩৩ জন। এ নিয়ে বিভাগে মোট সুস্থ হয়েছেন ৩৩ হাজার ২৮৫ জন। বর্তমানে বিভাগের ৮ জেলায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৪ হাজার ২৪৬ জন। এর মধ্যে ৫০ জন ভর্তি হয়েছেন গত ২৪ ঘণ্টায়।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক নাজমা আক্তার প্রথম আলোকে বলেন, করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় আজ থেকে রাজশাহী সিটি করপোরেশনে লকডাউন দেওয়া হয়েছে। লকডাউন বাস্তবায়ন করা গেলে সংক্রমণ কমবে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন