বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অনেক বিচারপতি সম্পর্কে সমালোচনা করেছেন। উনি (জাফরুল্লাহ চৌধুরী) সাহস দেখাতে বলেছেন। এমনিতেই যদি আমাদের বেঞ্চ থেকে একটি আদেশ হয়, তাহলেও মানুষের মনে নানা ধরনের ধারণা হতে পারে। তাই রিটটি অন্য বেঞ্চে শুনানি করা ভালো।’ পরে আদালত রিটটি কার্যতালিকা থেকে বাদ দেন।

default-image

গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিকেল কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মুহিব উল্লাহ খন্দকার ১১০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির অনুমতি চেয়ে ওই রিটটি করেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী ফখরুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার। এ সময় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ চৌধুরী আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

পরে আইনজীবী ফখরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‌‘সাভারে অবস্থিত গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিকেল কলেজে ২০১০ সালে ১১০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির অনুমতি পান।অধিভুক্ত হওয়ার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ চিঠি দিয়ে জানায়, ৫০ জনের বেশি ভর্তি করা যাবে না। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে আপিলের ভিত্তিতে ১০ জন বাড়ানো হয়। অথচ গণস্বাস্থ্যের অবকাঠামো ১১০ জনের, যে কারণে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ১১০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির অনুমতি চেয়ে রিটটি করেন। আদালত বলেছেন, জাফরুল্লাহ চৌধুরী সাহেব আমার অনেক প্রশংসা করেছেন। এ মামলায় যদি আদেশ দেওয়া হয়, তাহলে কেউ অন্য মন্তব্য করতে পারেন। সে জন্য রিটটি নিয়ে অন্য আদালতে যান। রিটটি কার্যতালিকা থেকে বাদ দিয়েছেন।’

১১ সেপ্টেম্বর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক অনুষ্ঠানে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের প্রশংসা করেছিলেন জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন