যাত্রাবাড়ী কাঠেরপুল এলাকায় যাত্রীবাহী বাসে অগ্নিসংযোগের অভিযোগে করা মামলায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীকে তিন দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আদেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল সোমবার ঢাকার মহানগর হাকিম মারুফ হোসেন এ আদেশ দেন। একই সঙ্গে আদালত জামিনের আবেদন নাকচ করে দেন।
এর আগে যাত্রাবাড়ী ও বাড্ডা থানায় করা আলাদা মামলায় দুই দফা রিমান্ডে নেওয়া হয় রিজভীকে। গতকাল পৃথক একটি মামলায় রিমান্ড শেষে রিজভীকে আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় যাত্রাবাড়ীর কাঠেরপুল এলাকায় গাড়ি পোড়ানোর ঘটনায় করা মামলায় গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) তাঁকে ১০ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করে। শুনানি শেষে আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
গত ৩১ জানুয়ারি রাত পৌনে তিনটার দিকে রাজধানীর বারিধারার একটি বাসা থেকে রিজভীকে আটক করে র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র্যাব)। পরে তাঁকে বাড্ডা ও যাত্রাবাড়ী থানায় করা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।
মোসাদ্দেক আলী কারাগারে: বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা মোসাদ্দেক আলীকে মিরপুর থানার একটি মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে গতকাল কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। রিমান্ড শেষে বিকেলে তাঁকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। নতুন করে রিমান্ডের আবেদন না থাকায় মহানগর হাকিম মাহবুবুর রহমান তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।
১ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে তাঁর গুলশানের কার্যালয় থেকে বের হওয়ার পর মোসাদ্দেক আলীকে আটক করে পুলিশ। এরপর তাঁকে মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগে খিলগাঁও থানায় করা একটি মামলায় ২ ফেব্রুয়ারি তাঁকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়। এরপর বাড্ডা থানায় বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে করা আরেকটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে দ্বিতীয় দফায় তাঁকে তিন দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়। পরে মিরপুর থানায় করা এক মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মোসাদ্দেক আলীকে ১১ ফেব্রুয়ারি তৃতীয় দফায় রিমান্ডে নেওয়া হয়। তিন দফা রিমান্ড শেষে গতকাল আদালতে হাজির করা হলে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন