বিজ্ঞাপন

বিবৃতিতে বলা হয়, স্বাস্থ্য সচিবের নেতৃত্বে তাঁর দপ্তরে প্রজাতন্ত্রের কয়েকজন কর্মচারী দীর্ঘ পাঁচ ঘণ্টা ধরে নির্যাতন, হয়রানি ও হেনস্তার পর প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে পুলিশে হস্তান্তর এবং গভীর রাতে অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তাঁর ওপর হামলা ও নির্যাতনের যে চিত্র ইতিমধ্যে প্রকাশিত হয়েছে, তাতে পরিষ্কার করে বলা যায়, রোজিনা ইসলামের দুর্নীতিবিরোধী সাংবাদিকতার ফলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা–কর্মচারীরা ব্যক্তিগতভাবে অবৈধ লাভ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন বলেই এমন ন্যক্কারজনক ও পরিকল্পিত হামলা পরিচালনা করেছেন।

বিবৃতিতে সংগঠনটির নেতারা বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের লাগামহীন দুর্নীতি, নিয়োগে অনিয়ম, কোভিডকালীন কেনাকাটায় দুর্নীতি, অনিয়মসহ সার্বিক অব্যবস্থাপনা নিয়ে রোজিনা ইসলাম যে সংবাদগুলো প্রকাশ করেছেন, এ কারণেই তিনি এমন ভয়াবহ নির্যাতনের শিকার। এ ঘটনায় কোনোভাবেই স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্যসচিব দায় এড়াতে পারেন না।

নেতারা আরও বলেন, রোজিনা ইসলামকে গ্রেপ্তার হয়রানি শুধু ব্যক্তি রোজিনার ওপরই হামলা নয়, বরং এটি স্বাধীন সাংবাদিকতা ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার ওপর হামলা।

রোজিনা ইসলামের ওপর এ হামলা, মামলা, গ্রেপ্তার মানবাধিকারেরও চরম লঙ্ঘন।
সংগঠনটির নেতারা অনতিবিলম্বে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের শর্তহীন মুক্তি, তাঁর বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহার এবং তাঁকে নির্যাতন ও হয়রানির সঙ্গে জড়িত সবার বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন