লক্ষ্মীপুরে গৃহবধূ হত্যা মামলায় স্বামীসহ তিনজন গ্রেপ্তার

বিজ্ঞাপন
default-image

লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলায় শারমিন আক্তার (২১) নামে এক গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগে তাঁর স্বামী, শ্বশুর ও দেবরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ শুক্রবার তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়। শনিবার তাঁদের আদালতে সোপর্দ করার কথা রয়েছে।

এর আগে গত বুধবার সকালে উপজেলার চরলরেন্স ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের আবুল কাশেমের বাড়ি থেকে শারমিনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় শারমিনের মা সুরুজা খাতুন বাদী হয়ে ওই দিনই থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলায় শারমিনের স্বামী মো. সুমন, শ্বশুর আবুল কাশেম, শাশুড়ি মিনুয়ারা বেগম এবং দুই দেবর আবুল কালাম ও মো. নোমানকে অভিযুক্ত করা হয়।

নিহত গৃহবধূর মা সুরুজা খাতুন বলেন, প্রায় এক বছর আগে পারিবারিকভাবে সুমনের সঙ্গে শারমিনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই সুমন ও তাঁর পরিবারের লোকজন যৌতুকের জন্য শারমিনকে চাপ দিয়ে আসছিলেন। যৌতুক না পেয়ে তাঁরা শারমিনকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করতেন। বুধবার শ্বশুরবাড়ি থেকে গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় শারমিনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। সুরুজার অভিযোগ, সুমন ও তাঁর পরিবারের লোকজন হত্যার পর শারমিনের লাশ ঝুলিয়ে রাখেন।

জানতে চাইলে কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ঝুলন্ত অবস্থায় লাশটির পা মাটি স্পর্শ করা অবস্থায় ছিল। সে কারণে ধারণা করা হচ্ছে, হত্যার পর লাশটি ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল। নিহত গৃহবধূর শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন ছিল না। মরদেহের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় শারমিনের স্বামী মো. সুমন, শ্বশুর আবুল কাশেম ও দেবর মো. নোমানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শনিবার তাঁদের আদালতে সোপর্দ করা হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন