শঙ্খ নদের ভাঙনে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার বারখাইন ইউনিয়নের তৈলারদ্বীপ গ্রামের বসতঘর ও জমি বিলীন হয়ে যাচ্ছে। শীতকালেও থামেনি ভাঙন। গত পাঁচ বছরে ভাঙনের কারণে বিলীন হয়ে গেছে ছয় শতাধিক বাড়িঘর ও ফসলি জমি।
সরেজমিনে দেখা যায়, বারখাইন ইউনিয়নের বদি আলমের দোকান থেকে দক্ষিণ তৈলারদ্বীপ পর্যন্ত দুই কিলোমিটার এলাকা শঙ্খের ভাঙনের কবলে পড়েছে। ইতিমধ্যে ওই অংশের বেড়িবাঁধ বিলীন হয়ে গেছে। একমাত্র চলাচলের পথ বেড়িবাঁধটি বিলীন হয়ে যাওয়ায় এলাকাবাসী বিপাকে পড়েছে।
তৈলারদ্বীপ গ্রামের দক্ষিণপাড়ার বাসিন্দা মো. মহিউদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘শঙ্খের ভাঙনে আমরা নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছি। বসতভিটাও চলে যাচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে আমরা কোথায় গিয়ে দাঁড়াব।’
নদের পাড়ের বাসিন্দা মো. ইউসুফ বলেন, ‘নদের ভাঙন ঘরের কাছাকাছি চলে আসছে। জানি না সামনের বর্ষায় আমাদের কপালে কী আছে।’
ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বর্ষার আগে ভাঙনকবলিত এলাকা রক্ষায় কোনো ব্যবস্থা নেওয়া না হলে অচিরেই গ্রামটি বিলীন হয়ে যাবে।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) উপসহকারী প্রকৌশলী কাইছার উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, তৈলারদ্বীপের ভাঙনকবলিত এলাকা পরিদর্শন করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন