এসএম হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তানভীর সিকদারের দাবি, হল প্রাধ্যক্ষ তাঁদের কোনো চেক দেননি। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘আয়োজনের শৃঙ্খলার দায়িত্বটা আমাদের দেওয়া হয়েছে। আমাদের কোনো চেক দেওয়া হয়নি। হল প্রশাসন আমাদের কেন চেক দেবে? আমরা কি হলের প্রাধ্যক্ষ, নাকি আবাসিক শিক্ষক?’

আবাসিক শিক্ষক মুহাম্মদ বেলাল হোসেনের বক্তব্যের বিষয়ে তানভীর সিকদার বলেন, খাবারের দাম পরিশোধের দায়িত্ব শিক্ষকদের। আবাসিক শিক্ষক কী বলতে চেয়েছেন, তা তিনিই ভালো বলতে পারবেন।

এসএম হলের প্রাধ্যক্ষ মো. মজিবুর রহমান দাবি করেন, তিনি কারও হাতে টাকা তুলে দেননি। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের জ্যেষ্ঠ আবাসিক শিক্ষক মুহাম্মদ বেলাল হোসেনের তত্ত্বাবধানে আয়োজনের সবকিছু চলছে। শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা ছাড়া তো তাঁরা পারবেনও না। বেলালের অনুমোদন ছাড়া কোনো অর্থ ছাড় হবে না। আমি তাঁদের (ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক) হাতে কোনো টাকা দিইনি। টাকা তুলে দেওয়া প্রাধ্যক্ষের কাজ নয়।’

শিক্ষক মুহাম্মদ বেলাল হোসেনের বক্তব্যের বিষয়ে প্রাধ্যক্ষ বলেন, বেলাল হয়তো বিষয়টি গুছিয়ে বলতে পারেননি।