শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার পর এবার মামলা

বিজ্ঞাপন

দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার পর এবার শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের করলেন পরিবহনশ্রমিক-মালিকেরা। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও থানায় এজাহার দাখিল করেছে।

গত বুধবার রাতে দিনাজপুরে একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বহনকারী বাসের ঘষা লাগা নিয়ে পরিবহনশ্রমিকদের পিটুনিতে ২০-৩০ জন শিক্ষার্থী আহত হন। এ ঘটনার জেরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে দুটি বাস ও তিনটি ট্রাকে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটে।

দিনাজপুরের কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রেদওয়ানুর রহিম বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে দিনাজপুর বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর খালেদ হোসেন, সহকারী প্রক্টর সৌরভ পালসহ ১২ জনের নাম উল্লেখপূর্বক ১০০-১৫০ শিক্ষার্থীকে আসামি করে মামলা করেছেন। দিনাজপুর মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সহসভাপতি সাইফুর রাজ প্রক্টর, সহকারী প্রক্টরসহ ৩০-৪০ জনকে আসামি করে আরেকটি মামলা করেন। এসব মামলায় প্রক্টর ও সহকারী প্রক্টরের নেতৃত্বে বাস পোড়ানো এবং শ্রমিকদের ওপর হামলার অভিযোগ করা হয়। অপরদিকে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ গতকাল শুক্রবার বিকেলে একটি অভিযোগ দিয়েছে। এটাকে মামলা হিসেবে গ্রহণ করার প্রক্রিয়া চলছে।

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে মামলার খবরে ক্ষোভ প্রকাশ করে অ্যাসোসিয়েশন অব ফ্যাকাল্টি অব সিএসইর সহসভাপতি এ আর বিজয় বলেন, শ্রমিকদের কারণেই সব ঘটনা। গাড়ি পোড়ানোর সঙ্গে কোনোভাবেই শিক্ষার্থীরা জড়িত নন। জেলা প্রশাসকের প্রস্তাব মেনে শিক্ষার্থীরা অবরোধও প্রত্যাহার করেছেন। অথচ শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলা করা হলো। এর বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. সফিউল আলম বলেন, কোনো স্বার্থান্বেষী মহল চাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করতে। তাই এ মামলা করা হয়েছে।

দিনাজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. মিজানুর রহমান বলেছেন, তদন্ত সাপেক্ষে দোষী ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার করা হবে।

তদন্ত কমিটি

শিক্ষার্থী-পরিবহনশ্রমিক সংঘর্ষের ঘটনায় জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম গত বৃহস্পতিবার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক মো. ইমতিয়াজ হোসেনকে প্রধান করে সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। কমিটিতে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা, বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের প্রতিনিধি রয়েছেন। কমিটিকে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

পরিবহন ধর্মঘট অব্যাহত

শিক্ষার্থী-পরিবহনশ্রমিক সংঘর্ষের পর বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দিনাজপুর জেলা বাস মালিক সমিতির ডাকা ধর্মঘট গতকালও চলেছে। ফলে এ জেলার সঙ্গে সারা দেশের বাস যোগাযোগ দ্বিতীয় দিনের মতো বন্ধ আছে।

জেলা প্রশাসক বলেন, বিষয়টি সমাধানে আলোচনা চলছে। কিন্তু পরিবহনমালিক ও শ্রমিক ইউনিয়ন ক্ষতিপূরণ ছাড়া পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার না করার দাবিতে অনড় রয়েছে।

জেলা বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম দাবি করেন, আগেও শিক্ষার্থীরা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছেন। ওই সব ঘটনায় ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা বলা হলেও তা দেওয়া হয়নি। ক্ষতিপূরণ ও অভিযুক্ত ব্যক্তিদের আইনের আওতায় না আনা হলে ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হবে না।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন