বিজ্ঞাপন

এর আগে পল্টন থানা–পুলিশ আসামি রফিকুল ইসলামকে সাত দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে। রফিকুলকে ভার্চ্যুয়ালি আদালতের সামনে উপস্থাপন করা হয়। শুনানি নিয়ে আদালত তিন দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেন।

গত ৭ এপ্রিল ভোরে নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার লেটিরকান্দার নিজ বাড়ি থেকে রফিকুলকে আটক করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। এরপর বিভিন্ন থানায় নাশকতা এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা বেশ কয়েকটি মামলায় তাঁকে দফায় দফায় রিমান্ডে নেওয়া হয়।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে গত ২৫ মার্চ দুপুরে রাজধানীর মতিঝিল শাপলা চত্বরে ছাত্র, যুব ও শ্রম অধিকার পরিষদের ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। এতে অন্যান্য সংগঠনের নেতা–কর্মীরাও অংশ নেন। রফিকুলও অংশ নেন। ওই দিন তাঁকে আটক করে পুলিশ। পরে মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পান তিনি। সেদিন পুলিশ মিছিলের গতি রোধ করতে চাইলে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়।

এ সময় পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাসের শেল ও রাবার বুলেট ছোড়ে। মিছিলকারীরাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। ওই ঘটনায় মতিঝিল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মিন্টু কুমার মামলাটি করেন। মামলায় ৫০০ থেকে ৬০০ জনকে আসামি করা হয়।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন