default-image

রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম বলেছেন, রেলপথ হয়ে খাদ্য পণ্য পরিবহণের জন্য বিদেশ থেকে আরও ৫০টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত লাগেজ ভ্যান আমদানির পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। অত্যাধুনিক এসব লাগেজ ভ্যানে মাছ, মাংস, দুধ, ডিম, শাক-সবজিসহ বিভিন্ন খাদ্যপণ্য পরিবহন করা যাবে।

শনিবার দুপুরে মন্ত্রী নিজের নির্বাচনী এলাকা পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলায় সরকারি ত্রাণ বিতরণকালে এসব কথা বলেন। দেবীগঞ্জ সরকারি কলেজ মাঠে করোনাভাইরাসের কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া শ্রমিক ও অসহায় ব্যক্তিদের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এসব ত্রাণ বিতরণ করা হয়।
মন্ত্রী বলেন, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত যাত্রীবাহী ট্রেন চালুর সুযোগ নেই। তবে কৃষকেরা যাতে তাঁদের পণ্যের ন্যায্যমুল্য পান, কেউ যেন ভোগ্যপণ্যের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করতে না পারে, সে জন্য রেল বিভাগ প্রথম পর্যায়ে তিনটি লাগেজ ভ্যান (মালবাহী ট্রেন) চালু করেছে। প্রয়োজন অনুযায়ী এই সংখ্যা বাড়ানো হবে।
নূরুল ইসলাম আরও বলেন, দেশে ত্রাণের কোনো সমস্যা নেই। করোনার কারণে কর্মহীন একজন মানুষও অভুক্ত থাকবে না। তারা যাতে ক্ষুধায় কষ্ট না পায়, সে জন্য সরকারের সব ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। প্রশাসন, জনপ্রতিনিধিসহ ত্রাণ বিতরণের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের দেখতে হবে, অসহায় ব্যক্তিদের একজনও যেন ত্রাণ থেকে বঞ্চিত না হয়।
সেই সঙ্গে মন্ত্রী করোনা পরিস্থিতিতে সরকারের পাশাপাশি সমাজের বিত্তবানদেরও এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।তিনি বলেন, ‌‌'প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন, আমাদের কৃষি জমির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। বেশি বেশি শাক-সবজিসহ খাদ্যশস্য চাষ করতে হবে। এক টুকরো জমিও ফেলে রাখা যাবে না।' টমেটো, তরমুজসহ বিভিন্ন শাক-সবজি ট্রেনের লাগেজ ভ্যানে স্বল্প ভাড়ায় পরিবহন করার জন্য ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানান নূরুল ইসলাম।
মন্ত্রী দেবীগঞ্জ পৌরসভা এলাকার ৪২০ জন শ্রমিক ও অসহায় মানুষের হাতে সরকারি ত্রাণ সহায়তা হিসেবে চাল, ডাল. তেল, লবণ, সাবান ও আলু ভর্তি একটি করে প্যাকেট তুলে দেন।
অন্যদের মধ্যে পঞ্চগড়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আজাদ জাহান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) নাঈমুল হাছান, দেবীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক চিশতী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) প্রত্যয় হাসান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গিয়াস উদ্দীন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক হাসনাৎ জামান চৌধুরী, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রিতু আক্তার উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0