প্রতিবেশী মনিরুল ইসলাম জানান, ওহিদুল ইসলাম নামের স্থানীয় এক ব্যক্তি আজ সকাল ছয়টার দিকে তাঁর নিজের জমিতে কাজ করতে যান। এরপর তাঁর চোখে পড়ে জমিতে লাগানো একটি আমগাছে একটি মেয়ের লাশ ঝুলছে। কাছে গিয়ে তিনি লাকীকে চিনতে পেরে তার পরিবারের কাছে খবর পাঠান।

লাকির মা ছালেহা খাতুন জানান, গতকাল শনিবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে মেয়েকে ঘরে না পেয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করেন তাঁরা। সকাল ছয়টার দিকে ওহিদুল ইসলাম এসে খবর দেন তাঁর মেয়ের লাশ গাছে ঝুলছে। এ খবর পেয়ে সেখানে ছুটে গিয়ে মেয়ের লাশ দেখতে পান তিনি। তিনি আরও জানান, তাঁর মেয়ে আত্মহত্যা করতে পারে না, তাকে হত্যার পর লাশ গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।

শৈলকুপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম জানান, লাকি খাতুনের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে।