default-image

বঙ্গোপসাগরকে ঘিরে সংযুক্তির উদ্যোগে ব্যাপকতর অর্থনৈতিক সহযোগিতার ওপর জোর দিতে হবে। তা না হলে সংযুক্তির চূড়ান্ত সাফল্য মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছাবে না। কারণ, বঙ্গোপসাগরকে ঘিরে সংযুক্তির উদ্যোগে সম্ভাবনা যেমন আছে, তেমনি আছে চ্যালেঞ্জও। তাই এ বিষয়টিকে বিশেষভাবে বিবেচনায় নিতে হবে।

গতকাল সোমবার বঙ্গোপসাগরকে ঘিরে সংযুক্তির বিষয়ে আয়োজিত এক আঞ্চলিক সম্মেলনের শেষ দিনের অধিবেশনে বক্তারা এ অভিমত দেন।

ঢাকায় জাপান দূতাবাসের সহযোগিতায় ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ (আইইউবি) ‘ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের সংযুক্তির কেন্দ্র হিসেবে বঙ্গোপসাগর’ শীর্ষক দুই দিনের ওই আঞ্চলিক সম্মেলনের আয়োজন করে। আইইউবির উদ্যোগে দুই দিনের এ সম্মেলনের সমন্বিত উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত আছে ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশন, বিমসটেক, বিশ্বব্যাংক এবং এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)।

আঞ্চলিক অধিবেশনের শেষ দিনে উপ-আঞ্চলিক সহযোগিতা এবং বঙ্গোপসাগর পূর্বের প্রবেশদ্বার শিরোনামে দুটি আলাদা কর্ম অধিবেশনে বক্তারা আলোচনা করেন।

বিজ্ঞাপন

সমাপনী অধিবেশনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিকবিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী বলেন, ‘ভারত ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ব্যাপকতর সংযুক্তির ক্ষেত্রে বঙ্গোপসাগর আমাদের সামনে অপার সম্ভাবনা হয়ে আছে। আবার এর কিছু চ্যালেঞ্জও আছে। কাজেই সম্ভাবনার সুফল পেতে হলে এ চ্যালেঞ্জগুলোকে কার্যকরভাবে মোকাবিলা করতে হবে।’

মিয়ানমারে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রদূত গৌতম মুখোপাধ্যায় বলেন, সংযুক্তির উদ্যোগে মানুষের ওপর জোর দিতে হবে। সেটি কৃষি থেকে শুরু করে তৃণমূলের সব উদ্যোগে। তা না হলে এ উদ্যোগ অর্থবহ হবে না। সব সময় কৃষককে বিবেচনা করা হয় যোগাযোগের সুফলভোগী হিসেবে। কিন্তু কৃষক এবং তার কৃষিপণ্য অবধারিতভাবে সংযুক্তিতে সরাসরি অবদান রাখছে। তারা শুধু সুফলভোগী নয়।

তাঁর মতে, সংযুক্তিকে শুধু অবকাঠামোর প্রেক্ষাপট থেকে বিচ্ছিন্নভাবে বিবেচনা করাটা সমীচীন হবে না। সংযুক্তির কেন্দ্রে যেহেতু মানুষ তাই সংশ্লিষ্ট অন্য বিষয়গুলোকে যুক্ত করে সংযুক্তির উদ্যোগ এগিয়ে নিতে হবে।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশেষ ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সংযুক্তির উদ্যোগকে সফল করতে হলে যৌথ বিনিয়োগের প্রকল্পে জোর দিতে হবে। পণ্য উৎপাদন, সরবরাহব্যবস্থার উন্নয়নের মতো বিষয়গুলোতে বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে। পাশাপাশি এটা বিবেচনায় নিতে হবে যে সীমান্ত, শুল্কব্যবস্থার মতো বিষয়গুলো যাতে বাধা সৃষ্টি না করে।

আইইউবির সেন্টার ফর বে অব বেঙ্গল ইনস্টিটিউটের পরিচালক ও সাবেক রাষ্ট্রদূত তারিক এ করিম বলেন, ‘আমরা যখন সংযুক্তির নতুন উদ্যোগের কথা বলছি, অতীতের সংযোগগুলো পুনঃপ্রতিষ্ঠার কথা বলছি, সে সময় মানুষকে এর সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে যুক্ত করা হবে, এ বিষয়ে বিশেষ জোর দিতে হবে। কারণ, এসব উদ্যোগের চূড়ান্ত লক্ষ্য জনগণের সুফল নিশ্চিত করা।’

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন