টানা অবরোধ-হরতালে পাবনার ভাঙ্গুড়া ও ফরিদপুর উপজেলার দুগ্ধ খামারিরা চরম বিপাকে পড়েছেন। ক্রয়কেন্দ্রগুলো নিয়মিত দুধ না কেনায় ৫০ টাকা দরের প্রতি লিটার দুধ বিক্রি করতে হচ্ছে ১২ থেকে ১৫ টাকায়। ভাঙ্গুড়া উপজেলার বিক্ষুব্ধ খামারিরা গত শনিবার বিকেলে প্রায় দুই হাজার লিটার দুধ সড়কে ঢেলে প্রতিবাদ জানিয়েছেন।
খামারিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ভাঙ্গুড়া ও ফরিদপুর উপজেলার অধিকাংশ মানুষই দুগ্ধ খামারের ওপর নির্ভরশীল। দুটি উপজেলা থেকে প্রতিদিন প্রায় দেড় লাখ লিটার দুধ দেশের বিভিন্ন এলাকায় যায়। আর কিছু দুধ সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়ী মিল্ক ভিটায় প্রক্রিয়াজাত করা হয়। বাকি দুধ বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা সরাসরি কিনে অন্যত্র সরবরাহ করেন। কিন্তু টানা অবরোধ-হরতালে পরিবহন বন্ধ থাকায় দুধ সরবরাহ কমে গেছে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো চাহিদামতো দুধ কিনছে না।
ভাঙ্গুড়া উপজেলার খামারিরা জানান, প্রতিদিন তাঁদের খামারের প্রায় ৩০ হাজার লিটার দুধ উপজেলার জগাতলা এলাকায় ব্র্যাকের দুগ্ধ ক্রয়কেন্দ্রে সরবরাহ করেন। কিন্তু সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি দুধ ক্রয় ও দাম কমিয়ে দিয়েছে। অনেক সময় পরিবহনে সমস্যা হলে দুধ ক্রয় বন্ধ করে দিচ্ছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার বিকেলে উপজেলার কয়েকটি সমবায় সমিতির খামারিরা দুধ নিয়ে ব্র্যাকের ক্রয়কেন্দ্রে যান। ক্রয়কেন্দ্র থেকে তাঁদের জানানো হয় যে বিকেলে দুধ নেওয়া হবে না। এতে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন খামারিরা। শেষ পর্যন্ত ক্রয়কেন্দ্র দুধ না নেওয়ায় ৭৭ জন খামারি তাঁদের প্রায় দুই হাজার লিটার দুধ সড়কে ঢেলে প্রতিবাদ জানান।
ব্র্যাকের ভাঙ্গুড়া দুগ্ধ ক্রয়কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক আবদুদ দায়েন বলেন, টানা হরতাল ও অবরোধের কারণে দুধের লরি নিয়মিত যাতায়াত করতে পারছে না। তাই প্রতিদিন দুধ ক্রয়ও সম্ভব হচ্ছে না।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন