রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

সন্ধ্যায় শ্রেণিকক্ষে অসুস্থ, শেষ রাতে হাসপাতালে মৃত্যু

বিজ্ঞাপন

নিজ বিভাগে নাটকের ব্যবহারিক পরীক্ষা দিচ্ছিলেন সাইদ। এর মধ্যে বিকেলে একবার অসুস্থ বোধ করেন। তবে বিশ্রাম নিয়ে আবারও অংশ নেন পরীক্ষায়। সন্ধ্যায় বেশি খারাপ লাগলে সহপাঠীরা তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যান। চিকিৎসা নিয়ে মাঝরাতে কিছুটা সুস্থবোধ করলেও শেষ রাতে হাসপাতালেই সাইদ মারা যান।

আবু সাইদ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। তাঁর বাড়ি ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল উপজেলায়।

গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় অসুস্থ হওয়ার পর শনিবার ভোর চারটায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

আবু সাঈদের সহপাঠীরা বলেন, নাট্যকলা বিভাগে দ্বিতীয় বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষার অংশ হিসেবে নাটকের ব্যবহারিক কাজ চলছিল। গ্যাস্ট্রিকজনিত কারণে অসুস্থ হয়ে পড়েন আবু সাইদ। পরে একটু সুস্থবোধ করে নিজ ইচ্ছাতেই আবারও পরীক্ষার অংশ হিসেবে অভিনয় করেন। সন্ধ্যার দিকে হঠাৎ বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েন সাইদ। এরপর সহপাঠী ও বিভাগের কর্মচারীরা মিলে তাঁকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসা গ্রহণের পর মধ্য রাতে কিছুটা সুস্থ বোধও করেন। বন্ধুদের সঙ্গে গল্প করে ঘুমিয়ে পড়েন। ঘুমের মধ্যেই ভোর চারটার দিকে বমি করার পর আর তাঁর কোনো সাড়া না পেলে বন্ধুরা চিকিৎসককে ডাকেন। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

নাট্যকলা বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক শাহরিয়ার হোসেন বলেন, ভোরে বড় কোনো চিকিৎসক ছিলেন না। তবে ইন্টার্ন চিকিৎসকেরা বলেছেন, এটা আকস্মিক মৃত্যু। প্রাথমিকভাবে হৃদ্‌রোগের কারণে মনে হচ্ছে। ৩২ নম্বর ওয়ার্ড যেহেতু হার্টের রোগীদের ওয়ার্ড। চিকিৎসকেরা হয়তো গ্যাস্ট্রিকের পাশাপাশি তাঁর হার্টেরও কোনো সমস্যা বুঝেছিলেন।

শাহরিয়ার হোসেন বলেন, ‘ঘটনার পরপরই আমরা মেডিকেলে যাই। পরে তাঁর লাশ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নিয়ে আসা হয়। সেখানে কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে সকাল ১০টায় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বাসে করে বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা তাঁর লাশ নিয়ে ঠাকুরগাঁওয়ে রওনা হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন