জীবনে নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে ইচ্ছেশক্তির জোরে সমাজে নিজের অবস্থান করে নিয়েছেন অনেক নারী। পরিবারের পাশাপাশি সমাজের উন্নয়নেও তাঁরা ভূমিকা রেখে চলেছেন। বন্ধুর পথে চললেও নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করতে পেরেছেন। তাঁরা সমাজের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে আছেন। তাঁরাই জয়িতা, বাংলাদেশের আলোকবর্তিকা।
গতকাল শনিবার জেলা শিল্পকলা একাডেমীর মুক্তমঞ্চে শ্রেষ্ঠ পাঁচ জয়িতাসহ মোট ৫৫ জন জয়িতাকে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ‘জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ’ শীর্ষক কার্যক্রমের আওতায় এবারও চট্টগ্রাম বিভাগের ১১টি জেলা থেকে পাঁচটি ক্যাটাগরিতে মোট ৫৫ জন জয়িতাকে নির্বাচন করা হয়। এঁদের মধ্যে বিভাগীয় পর্যায়ে পাঁচজনকে শ্রেষ্ঠ জয়িতা ঘোষণা করা হয়।
পাঁচটি বিভাগে শ্রেষ্ঠ হয়েছেন যাঁরা তাঁরা হচ্ছেন, অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে আয়েশা বেগম, শিক্ষা ও চাকরিতে হাফছা আক্তার, সফল জননী শিরিন আক্তার খানম, নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন উদ্যমে জীবন শুরু করা ঝর্ণা ধর ও সমাজ উন্নয়নে তাহমিনা হক চৌধুরী।
অনুষ্ঠানে শ্রেষ্ঠ জয়িতাদের হাতে ক্রেস্ট, সনদ ও ১০ হাজার টাকা তুলে দেওয়া হয়। অন্য জয়িতাদেরও ক্রেস্ট, সনদপত্র ও দুই হাজার টাকা দিয়ে সম্মাননা জানানো হয়।
অনুষ্ঠানে ১০ জন জয়িতা তাঁদের জীবনসংগ্রামের কথা তুলে ধরেন। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা, পারিবারিক নির্যাতন কিংবা দারিদ্র্যের সঙ্গে কঠোর লড়াই করে সফল হওয়ার গল্প শোনান তাঁরা।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল্লাহ। বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) মো. আলেফউদ্দিন, চট্টগ্রাম বন্দরের পরিচালক জাফর আলম, চট্টগ্রাম সিটি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হযরত আলী মিয়া, মানবাধিকারকর্মী জেসমিন সুলতানা পারু, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোখলেসুর রহমান ও চট্টগ্রাম চেম্বারের পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ।
বক্তারা বলেন, তৃণমূলে যেসব নারী অপ্রতিরোধ্য জীবনসংগ্রাম করে সফল হয়েছেন, তাঁরা প্রত্যেকেই জয়িতা। আর নির্বাচিত জয়িতারা সমাজের আলোকবর্তিকা। তাঁদের দেখে বাকিরা অনুপ্রাণিত হন।
অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন, চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মো. ইসমাইল, চট্টগ্রাম জেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা নিভা হক, বান্দরবান জেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা অঞ্জনা ভট্টাচার্য প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন