default-image

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার জন্য উচ্চমাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশের স্বল্প সময়ের মধ্যে অনলাইনে আবেদন নেওয়া হবে। আর ভর্তি পরীক্ষা নভেম্বরের মধ্যে সম্পন্ন করা হবে। পরীক্ষার নাম হবে ‘পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা’।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সংগঠন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের সভায় এসব সিদ্ধান্ত হয়।

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক কামাল উদ্দিন আহাম্মদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় ২৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা সভায় উপস্থিত ছিলেন।

আগামী এপ্রিলের শুরুতে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হবে। উপাচার্যদের সভায় আসন্ন শিক্ষাবর্ষ (২০২০-২০২১) থেকেই সমন্বিত বা কেন্দ্রীয়ভাবে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে ইউজিসির সিদ্ধান্তের সঙ্গে একমত প্রকাশ করা হয়। অবশ্য সভায় উপস্থিত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য শিরীণ আখতার বলেছেন, তাঁরা তাঁদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা পরিষদের (একাডেমিক কাউন্সিল) সভা করে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।

এর আগে গত ২৩ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনে (ইউজিসি) অনুষ্ঠিত এক সভায় সাত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পর দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়েও সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার সিদ্ধান্ত হয়। এরপর থেকে এ নিয়ে আলোচনা শুরু হয়।

আজকের সভায় উপাচার্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এম আবদুস সোবহান, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হারুন-অর-রশিদ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মীজানুর রহমান, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহাম্মদ, ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হারুন উর রশিদ আসকারী, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামানসহ প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন