default-image

করোনার টিকা নিয়ে কারও সঙ্গে বিশেষ কোনো সম্পর্কের দরকার নেই বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, জনগণকে বাঁচাতে সরকার যেখান থেকেই পারে, সেখান থেকে টিকা সংগ্রহ করবে।

শহীদ শেখ জামালের ৬৮তম জন্মদিন উপলক্ষে আজ বুধবার সকালে বনানী কবরস্থানে তাঁর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দ্বিতীয় পুত্র ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর গর্বিত অফিসার, বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ লেফটেন্যান্ট শেখ জামালের ৬৮তম জন্মদিন আজ ২৮ এপ্রিল। ১৯৫৪ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বঙ্গবন্ধু পরিবারের সাহস ও মেধার যে রাজনীতি, তারই অনন্য দৃষ্টান্ত শেখ জামাল। তাঁর জন্মদিনে শপথ হোক, বাংলাদেশে হত্যা ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতির ট্র্যাজেডি থেকে জাতিকে মুক্তি দিতে হবে। হত্যার রাজনীতি কারও কাম্য নয়।

বিজ্ঞাপন

সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, যাঁরা ১৯৭৫ সালের নির্মম হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে জড়িত ছিলেন, তাঁরাও কিন্তু রেহাই পাননি। হত্যা হত্যাকেই ডেকে আনে। বঙ্গবন্ধুর নৃশংস হত্যাকাণ্ড না হলে আরও একটি খুনি দল জিয়াউর রহমানকে হত্যা করার সাহস পেত না। জিয়াউর রহমান নিজেই হত্যাকাণ্ডের মাস্টার মাইন্ড ছিলেন। এর পরিণতি তাঁকে ভোগ করতে হয়েছে।

বিএনপির উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘হত্যা-ষড়যন্ত্রের রাজনীতি পরিহার করুন। সবকিছুতে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি এখন শেখ হাসিনাকে রাজনীতি থেকে কীভাবে সরিয়ে দেওয়া যায়, সেই ষড়যন্ত্র করছে।’

বাংলাদেশে সত্যিকারের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে বিএনপিকে হত্যা, ষড়যন্ত্র ও সন্ত্রাসের পথ থেকে সরে আসার আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, দোষারোপের রাজনীতি পরিহার করে দলমত-নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধভাবে সবার অভিন্ন শত্রু করোনাকে মোকাবিলা করাই এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

ওবায়দুল কাদেরের শ্রদ্ধা নিবেদনের পর শেখ জামালের সমাধিতে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, কৃষক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মৎস্যজীবী লীগ, মহিলা শ্রমিক লীগ, শেখ জামাল জাতীয় স্মৃতি পরিষদ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক-রাজনৈতিক সংগঠনের নেতারা ফুলেল শ্রদ্ধা জানান।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন