বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএফইউজের সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন বিএফইউজের কোষাধ্যক্ষ দীপ আজাদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, বিএফইউজের দপ্তর সম্পাদক বরুন ভৌমিক।
সাংবাদিকদের চাপের মধ্যে রাখার জন্যই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই সিদ্ধান্ত, এমনটিই মনে করে বিএফইউজে। সভায় বলা হয়, কোনো ব্যক্তিবিশেষের ব্যক্তিগত দুর্নীতি বা অপরাধের সুনির্দিষ্ট অভিযোগের তদন্ত ও বিচার হতেই পারে। কিন্তু একটি বিশেষ পেশার সব সংগঠনের নির্বাচিত শীর্ষ নেতাদের নামে ঢালাও এই সিদ্ধান্ত বিশেষ উদ্দেশ্যমূলক বলে মনে করার যথেষ্ট কারণ রয়েছে। বিষয়টি কিছুটা যুক্তিসংগত হতো, যদি সব পেশাজীবী সংগঠনের সব নির্বাচিত নেতার নামেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হতো।

কিন্তু তা না করে শুধু সাংবাদিক নেতাদের নামে এই সিদ্ধান্ত সুস্থ সাংবাদিকতাকে হুমকি দেওয়ার জন্যই নেওয়া হয়েছে কি না, সে প্রশ্নও উঠেছে। সভায় এ সিদ্ধান্ত অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়।

বিএফইউজে মনে করে, গণমাধ্যমবান্ধব প্রধানমন্ত্রী ও সরকারের সঙ্গে সাংবাদিকদের দূরত্ব সৃষ্টি করার জন্যই কোনো বিশেষ মহলের পরিকল্পনায় বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের এ সিদ্ধান্ত। সব হুমকি, চক্রান্ত প্রতিহত করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অবিচল থেকে সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়েছে বিএফইউজে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন