default-image

রাজধানীতে জোড়া খুনের মামলার আসামি সাংসদপুত্র বখতিয়ার আলম রনিকে গতকাল শনিবার সকালে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে স্থানান্তর করা হয়েছে। আজ রোববার ঢাকার জেলা প্রশাসকের কাছে তাঁর পিস্তলের লাইসেন্স বাতিলের আবেদন করা হতে পারে।
কেন্দ্রীয় কারাগারের কারাধ্যক্ষ মো. নেছার আলম বলেন, কারাগারের হাসপাতালে থাকা বখতিয়ারকে সকালে কাশিমপুর কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
গত বৃহস্পতিবার তৃতীয় দফায় দুদিনের রিমান্ড শেষে ডিবি পুলিশ বখতিয়ারকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায়। ৩০ জুন ডিবি পুলিশ তাঁকে দুদিনের রিমান্ডে নেয়। তাঁর মা পিনু খান সংরক্ষিত আসনের সাংসদ ও মহিলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক।
সূত্র জানায়, গত ৯ জুন প্রথম দফায় বখতিয়ারকে চার দিনের ও ২৪ জুন দ্বিতীয় দফায় আরও চার দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়। বখতিয়ারের বস্তুগত তথ্য, পর্যাপ্ত সাক্ষ্য-প্রমাণ ও প্রত্যক্ষদর্শীদের জবানবন্দিতে প্রমাণিত হয়েছে তাঁর গুলিতে দুজন শ্রমজীবী মানুষ নিহত হয়েছেন।
পিস্তলের লাইসেন্স বাতিলের আবেদন: তদন্ত কর্মকর্তা ডিবির এসআই দীপক কুমার দাস বলেন, বখতিয়ারের পিস্তলের লাইসেন্স বাতিলে আজ জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করা হচ্ছে।
সূত্র জানায়, গত ১৩ এপ্রিল গভীর রাতে নিউ ইস্কাটন রোডে প্রাডো গাড়ি থেকে নেশাগ্রস্ত অবস্থায় বখতিয়ার এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়লে রিকশাচালক আবদুল হাকিম ও দৈনিক জনকণ্ঠ পত্রিকার অটোরিকশাচালক ইয়াকুব আলী আহত হন। ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৫ এপ্রিল হাকিম এবং ২৩ এপ্রিল ইয়াকুব মারা যান। এ ঘটনায় ১৫ এপ্রিল রমনা থানায় মামলা করেন হাকিমের মা মনোয়ারা বেগম। ৩১ মে বখতিয়ার ও তাঁর গাড়িচালক ইমরান ফকিরকে গ্রেপ্তার করে ডিবি।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0