সাভারে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে ৫টি ইটভাটা

বিজ্ঞাপন
default-image

ঢাকার সাভারের পৌর এলাকার নামা গেন্ডায় আজ বৃহস্পতিবার পাঁচটি ইটভাটা গুঁড়িয়ে দিয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তরের ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে এসব ভাটাকে ২৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে জানানো হয়, সাভার পৌর এলাকাসহ আশপাশের এলাকায় অন্তত ১০টি ইটভাটা রয়েছে। এসব ভাটায় দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে ইট পোড়ানো হচ্ছে।

আজ বেলা ১১টার দিকে অভিযান চালানো হয় তিশা ব্রিকস নামের একটি ইটভাটায়। এ সময় ভাটার বেশির ভাগই গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। জরিমানা করা হয় ৫ লাখ টাকা। তাৎক্ষণিক জরিমানার টাকা পরিশোধ করতে ব্যর্থ হওয়ায় দুজনকে আটক করা হয়। পরে জরিমানা আদায় হলে তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়। এরপর অভিযান চালানো হয় কেএসবি ও চান অ্যান্ড ব্রিকস নামের দুটি ইটভাটায়। এ দুটি ভাটার চুল্লি ভেকু দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। জরিমানা করা হয় ৮ লাখ টাকা। দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালত যান মধুমতি সুপার ব্রিকস নামের একটি ইটভাটায়। কিন্তু ভাটাটির অনুমতি থাকার কথা বলে অভিযান না চালিয়ে পাশের মাসুম সুপার ব্রিকস নামের একটি ভাটায় অভিযান চালানো হয়। মাসুম সুপার ব্রিকসের চুল্লির ৪০ ভাগ ভেঙে দেওয়া হয়। জরিমানা করা হয় ৫ লাখ টাকা।
মাসুম ব্রিকসে অভিযান শেষে সাংবাদিকেরা পরিবেশ অধিদপ্তরের কাছে মধুমতি ব্রিকসের ছাড়পত্র ও অনুমোদন সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখতে চাইলে সেখানে উপস্থিত অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা তা দেখাতে ব্যর্থ হন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত ওই ভাটায় অভিযান চালিয়ে তা গুঁড়িয়ে দেন। এ সময় ভাটার মালিককে ৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

অভিযানে নেতৃত্ব দেন পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাকছুদুল ইসলাম। তাঁকে সহায়তা করেন, পরিবেশ অধিদপ্তরের ঢাকা জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক শাহেদা বেগম, সহকারী পরিচালক শরিফুল ইসলাম ও মাহবুবুর রহমান খান।

মাকছুদুল ইসলাম বলেন, উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী ঢাকার চারপাশের বিভিন্ন জেলার অবৈধ ইটভাটা উচ্ছেদে অভিযান চলছে। এর অংশ হিসেবে আজ সাভারে অভিযান চালিয়ে পাঁচটি ইটভাটা গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আগে ইটভাটার আংশিক ভেঙে দিয়ে বেশি টাকা জরিমানা করা হতো। কিন্তু ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে কম জরিমানা করে ভাটার কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন