বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হাইকোর্ট ‘চৌর্যবৃত্তির’ অভিযোগ ওঠা ওই গবেষণা নিবন্ধের পর্যালোচনা, চৌর্যবৃত্তির অভিযোগ অনুসন্ধানকারী কমিটির প্রতিবেদন ও চৌর্যবৃত্তির শাস্তি নির্ধারণে গঠিত ট্রাইব্যুনালের সুপারিশ প্রতিবেদন আকারে তিন সপ্তাহের মধ্যে আদালতে দাখিল করতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারকে নির্দেশ দেন।

default-image

গবেষণা নিবন্ধে ‘চৌর্যবৃত্তির’ শাস্তি হিসেবে গত ২৮ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট ওই সিদ্ধান্ত নেয়। এর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে সামিয়া রহমান গত ৩১ আগস্ট রিটটি করেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী হাসান এম এস আজিম। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

পরে আইনজীবী হাসান এম এস আজিম প্রথম আলোকে বলেন, গত ২৮ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের নেওয়া ওই সিদ্ধান্তের দিন থেকে সামিয়া রহমানকে আর্থিক সুবিধাসহ চাকরির সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, রুলে তা–ও জানতে চাওয়া হয়েছে। শিক্ষাসচিব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, রেজিস্ট্রার, সমাজিক বিজ্ঞান অনুষদের সোশ্যাল সায়েন্স রিভিউ জার্নালের সম্পাদনা পর্ষদের সম্পাদকসহ ১২ বিবাদীকে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। ২৮ সেপ্টেম্বর পরবর্তী আদেশের জন্য দিন রেখেছেন আদালত।
আরও পড়ুন

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন