সিরাজগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

বিজ্ঞাপন

উজান থেকে নেমে আসা ঢল ও বৃষ্টির কারণে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সিরাজগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির আবারও অবনতি হয়েছে।পানির চাপে কাজীপুর উপজেলায় শহর রক্ষা বাঁধের ২ নম্বর মেঘাই স্পারের ৫০ মিটার মাটির অংশ গত বৃহস্পতিবার সকালে ধসে গেছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, ধসে যাওয়া ওই স্থান সংস্কারে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত কাজ শুরু করেনি। এ কারণে বাঁধ ধসের মাত্রা বেড়েই চলেছে। একই সঙ্গে জেলার অভ্যন্তরীণ নদী করতোয়া, বড়াল ও ফুলঝোড়ের পানি বৃদ্ধির কারণে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে।এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সদর উপজেলার শিমলা ও বাহুকা, বেলকুচি উপজেলার রান্ধুনীবাড়ী বাজার ও আগুরিয়া এবং চৌহালী উপজেলার পাথরাইল এলাকায় ব্যাপক ভাঙন শুরু হয়েছে। গত দুই দিনে এসব এলাকার শতাধিক বাড়িঘর ও দোকানপাট নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। নতুন করে ভাঙন শুরু হওয়ায় নদীর তীরবর্তী এলাকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।এ ব্যাপারে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সুজয় চাকমা বলেন, মেঘাই স্পারটি গত বছর বন্যায় ধসে যাওয়ার পর এটি সংস্কারের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়েছিল। কিন্তু বরাদ্দ না আসায় মেরামতের কাজ করা সম্ভব হয়নি। এ ছাড়া নদ-নদীগুলোয় পানি বৃদ্ধির কারণে জেলায় নতুন করে ভাঙন শুরু হয়েছে। বিষয়টি উল্লেখ করে জরুরি ভিত্তিতে বরাদ্দ চেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে। বরাদ্দ পাওয়ার পর কাজ শুরু করা হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন