পুলিশ ও কিশোরীর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ওই কিশোরীর পরিবার ভাড়া বাসায় থাকে। গতকাল নূর মিয়া মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন। দুপুরের দিকে কিশোরী অসুস্থ হয়ে পড়লে পরিবারের লোকজনকে ঘটনাটি জানায়। কিশোরীর বাবা বিষয়টি পুলিশকে জানায়। পুলিশ কিশোরীর চিকিৎসার জন্য সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠায়। পরে নূর মিয়াকে তাঁর বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ।

কিশোরীর বাবার দাবি, মেয়েকে ধর্ষণের পর বিষয়টি মীমাংসা করতে বিভিন্নভাবে চেষ্টা করেন নূর মিয়া। তবে তিনি ঘটনার বিচারের দাবিতে অটল ছিলেন।

সিলেট মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আবু খালেদ মামুন প্রথম আলোকে বলেন, কিশোরীর মায়ের করা অভিযোগ মামলা হিসেবে নিয়ে নূর মিয়াকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তাঁকে মঙ্গলবার সকালে আদালতে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন